লোকসভা কেন্দ্র: বালুরঘাট

২০১৪ সালের নির্বাচনে উত্তরবঙ্গের এই লোকসভা কেন্দ্রটি তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে গিয়েছিল৷ ঘাসফুলের টিকিটে নাট্যকর্মী অর্পিতা ঘোষ জয়ী হয়েছিলেন৷ এবারও তাঁকেই প্রার্থী করেছে তৃণমূল

১৯’এর নির্বাচনে এই কেন্দ্রে দলীয় প্রার্থীদের নাম:

তৃণমূল প্রার্থী: অর্পিতা ঘোষ

কংগ্রেস প্রার্থী: আব্দুস সাদেক সরকার

বামফ্রন্ট প্রার্থী: রণেন বর্মন

বিজেপি প্রার্থী: ডঃ সুকান্ত মজুমদার

বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রটি তফসিলি উপজাতিদের জন্য সংরক্ষিত৷ এই কেন্দ্রের ভোটার সংখ্যা:

এই কেন্দ্রের অধীনে সাতটি বিধানসভা কেন্দ্র:

ইটাহার, কুশমণ্ডি, কুমারগঞ্জ, বালুরঘাট, তপন, গঙ্গারামপুর, হরিরামপুর

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফল:

ইটাহার: এই বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী অমল আচার্য ৮৮,৫০৭ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন৷ দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন বামফ্রন্ট প্রার্থী শ্রীকুমার মুখোপাধ্যায়৷তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৬৯,৩৮৭ হাজার৷তৃতীয় স্থানে ছিলেন বিজেপি প্রার্থী ইউনিস হক৷ তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৭,১২৬ হাজার৷

দল প্রাপ্ত ভোট
তৃণমূল কংগ্রেস ৮৮,৫০৭
বামফ্রন্ট ৬৯,৩৮৭
বিজেপি ৭,১২৬

কুশমণ্ডি: এই বিধানসভা কেন্দ্রে বামফ্রন্ট মনোনীত আরএসপি প্রার্থী নর্মদা চন্দ্র রায় ৬৮, ৯৬৫ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন৷৬৫,৪৩৬ হাজার ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের রেখা রায়৷ বিজেপির রনজিৎ কুমার রায় ছিলেন তিন নম্বরে ৷তাঁর প্রাপ্ত ভোট ২০,১৮৩ হাজার৷

দল প্রাপ্ত ভোট
বামফ্রন্ট ৬৮,৯৬৫
তৃণমূল কংগ্রেস ৬৫,৪৩৬
বিজেপি ২০,১৮৩

কুমারগঞ্জ: এই বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের তোরাফ মণ্ডল ৬৪,৫০১ হাজার ভোট পেয়ে জিতেছিলেন৷ বামফ্রন্ট প্রার্থী মাফুজা খাতুন পেয়েছিলেন ৬১,০০৫ হাজার ভোট৷ বিজেপি প্রার্থী মানস সরকার পেয়েছিলেন ২২,২০১ হাজার ভোট৷

দল প্রাপ্ত ভোট
তৃণমূল কংগ্রেস ৬৪,৫০১
বামফ্রন্ট ৬১,০০৫
বিজেপি ২২,২০১

বালুরঘাট: এই বিধানসভা কেন্দ্রে বামফ্রন্ট মনোনীত আরএসপি প্রার্থী বিশ্বনাথ চৌধুরী ৬০,৫৯০ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন৷তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী শংকর চক্রবর্তী পেয়েছিলেন ৫৯,১৪০ হাজার ভোট৷ তিনি দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন৷বিজেপির গৌতম চক্রবর্তী ১৫,২৫৮ হাজার ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছিলেন৷

দল প্রাপ্ত ভোট
বামফ্রন্ট ৬০,৫৯০
তৃণমূল কংগ্রেস ৫৯,১৪৯
বিজেপি ১৫,২৫৮

তপন: এই বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী বাচ্চু হাঁসদা ৭২,৫১১ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন৷আরএসপি প্রার্থী উরাও রঘু পেয়েছিলেন ৬৮,১১০ হাজার ভোট৷বিজেপির কৃষ্ণা কুজুর পেয়েছিলেন ২০,৫১০ হাজার ভোট৷

দল প্রাপ্ত ভোট
তৃণমূল কংগ্রেস ৭২,৫১১
বামফ্রন্ট ৬৮,১১০
বিজেপি ২০,৫১০

গঙ্গারামপুর: এই বিধানসভা কেন্দ্রে জাতীয় কংগ্রেস প্রার্থী গৌতম দাস ৮০,৪০১ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন৷দ্বিতীয় হয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী সত্যেন্দ্রনাথ রায়৷ তিনি পেয়েছিলেন ৬৯,৬৬৮ হাজার ভোট৷বিজেপি প্রার্থী সনাতন কর্মকার ১৭, ৬০৪ হাজার ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থান দখল করেছিলেন৷

দল প্রাপ্ত ভোট
কংগ্রেস ৮০,৪০১
তৃণমূল কংগ্রেস ৬৯,৬৬৮
বিজেপি ১৭,৬০৪

হরিরামপুর: এই বিধানসভা কেন্দ্রে সিপিএম প্রার্থী রফিকুল ইসলাম ৭১, ৪৪৭ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন৷তৃণমূল কংগ্রেসের বিপ্লব মিত্র ৬৬,৯৪৩ হাজার ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছিলেন৷বিজেপি নেতা পাণিভূষণ মাহাতো ১৯,৮৪৫ হাজার ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থানে ছিলেন৷

দল প্রাপ্ত ভোট
বামফ্রন্ট ৭১,৪৪৭
তৃণমূল কংগ্রেস ৬৬,৯৪৩
বিজেপি ১৯,৮৪৫

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে এই সাতটি কেন্দ্রের মধ্যে তিনটি আসনে জিতেছিল তৃণমূল কংগ্রেস, তিনটি আসনে বামফ্রন্ট এবং একটি আসনে কংগ্রেস৷ উল্লেখ্য, এই বিধানসভা নির্বাচনে বাম-কংগ্রেস জোট বেঁধে লড়াই করেছিল৷ অতএব, বাম ও কংগ্রেস যে আসনে যতটা ভোট পেয়েছে সেটা দুই দলের মিলিত ভোট৷ যদি বাম-কংগ্রেস আলাদা লড়াই করত তাহলে এই ভোট ভাগ হত৷

যদি এই সাতটি বিধানসভা মিলিয়ে প্রত্যেকটা রাজনৈতিক দলের এককভাবে মোট প্রাপ্ত ভোট হিসেব করা হয় তাহলে দেখা যাবে তৃণমূল কংগ্রেস পেয়েছে( ৮৮,৫০৭ + ৬৫,৪৩৬+ ৬৪,৫০১+ ৫৯,১৪৯+ ৭২,৫১১+৬৯,৬৬৮+ ৭১,৪৪৭)= ৪,৯১,২১৯ হাজার ভোট৷ বামফ্রন্ট পেয়েছে(৬৯,৩৮৭+ ৬৮,৯৬৫+৬১,০০৫+ ৬০,৫৯০+ ৬৮,১১০+ ৭১,৪৪৭ )= ৩,৯৯,৫০৪ হাজার ভোট৷ কংগ্রেস একটি মাত্র আসনে প্রার্থী দিয়েছিল এবং আসনটি জিতেছিল৷তাদের প্রাপ্ত ভোট ৮০,৪০১ হাজার৷বিজেপির মোট প্রাপ্ত ভোট(৭,১২৬+ ২০,১৮৩+ ২২,২০১+ ১৫,২৫৮+ ২০,৫১০+ ১৭,৬০৪+ ১৯,৮৪৫ )=১,২২,৭২৭ হাজার ভোট৷ দেখা যাচ্ছে, বিধানসভা ভোটে এই কেন্দ্রে তৃণমূল ও বামেরা তিনটি করে আসন জিতলেও তৃণমূলের প্রাপ্ত ভোট বামেদের থেকে অনেকটাই বেশি৷