বালুরঘাট: জমি নিয়ে বিবাদের জেরে সংঘর্ষে উত্তপ্ত দক্ষিণ দিনাজপুরের কুমারগঞ্জ। জমি বিবাদের জেরে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে স্থানীয় তৃণমূলের দুটি গোষ্ঠী৷ দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৭ জন৷ আহতরা বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে ভর্তি৷

বুধবার কুমারগঞ্জ থানার শ্যামনগর এলাকায় একটি জমি দখলকে কেন্দ্র করে বিবাদ শুরু হয়৷ তৃণমূলের দুই গোষ্ঠী বিবাদে জড়িয়ে পড়ে৷ জমি দখলকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের বিধায়ক তোরাব হোসেন ও প্রাক্তন বিধায়ক মেহমুদা বেগমের গোষ্ঠীর লোকজন গন্ডগোলে জড়িয়ে পড়ে৷ প্রথম দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক বচসা হয়৷ মুহূর্তে সেই বচসা রূপ নেয় সংঘর্ষের৷

অভিযোগ, শ্যামনগর এলাকার একটি জমি নিয়ে প্রাক্তন বিধায়কের গোষ্ঠীর জয়নাল মন্ডল ও বিধায়কের অনুগামী তথা তৃণমূলের নেতা উপেন মন্ডলের মধ্যে বহুদিন ধরেই বিবাদ চলছিল। বুধবার জয়নালের বাড়িতে উপেন মণ্ডল সদলবলে হামলা চালায় বলে অভিযোগ৷ পালটা উপেন মণ্ডলের অনুগামীরাও হামলা চালায় বলে অভিযোগ৷ দু’পক্ষের সংঘর্ষে মুহূর্তে ব্য়াপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়৷ সংঘর্ষে দু’পক্ষের বেশ কয়েকজন মহিলা-সহ সাত জনেরও বেশি জখম হয়েছেন। সংঘর্ষের পরই কুমারগঞ্জ থানার পুলিশের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলে সরব হয়েছেন প্রাক্তন বিধায়িক মেহমুদা বেগম।

দলেরই অন্য একটি গোষ্ঠীর সঙ্গে সংঘর্ষ প্রসঙ্গে বুধবার মেহমুদা বেগম জানান, শ্যামনগরে জমি সংক্রান্ত বিবাদ নিয়ে উপেন মন্ডলের লোকজন জয়নাল মন্ডলের বাড়িতে চড়াও হয়৷ দা, কুড়ুল-সহ ধারাল অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়৷

অন্যদিকে, বিধায়ক তোরাব হোসেন মণ্ডলের অনুগামী বলে পরিচিত মোতলেফ মণ্ডল, তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলের অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন। তিনি জানান, বহুদিন ধরেই জমিটি নিয়ে বিবাদ চলছে। ওই জমিতে বেড়া দেওয়া নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে গন্ডগোল বাধে। এই গন্ডগোলের সঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক নেই৷