নয়াদিল্লি: সীমান্ত’কে সন্ত্রাসীদের নিরাপদ ডেরা হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না, বালাকোট এয়ারস্ট্রাইক সেই বার্তাই পরিষ্কারভাবে দিয়েছে, এমনটাই মনে করেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং।

সেন্টার ফর এয়ার পাওয়ার স্টাডিসে উপস্থিত হয়ে রাজনাথ সিং জানিয়েছেন, “আমাদের যদি যেকোনওরকমকাজের জন্য প্রস্তুত থাকতে হয় তাহলে আকাশপথে, জলপথে এবং মাটিতে ততটা তাৎপর্যপূর্ণভাবে শক্তিশালী প্রতিবন্ধকতা তৈরি রাখা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ”।

বালাকোট এয়ারস্ট্রাইক যথেষ্ট স্পষ্টভাবে ভারতের অবস্থান এবং বার্তা পৌঁছে দিয়েছে যে সীমান্ত লাগোয়া জায়গার পরিকাঠামোকে ব্যবহার করে সন্ত্রাসীদের নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না। বালাকোট স্পষ্টভাবে বার্তা দিয়েছে যে ভারত ঠিক কতটা প্রতিরক্ষা শক্তিসম্পন্ন শুধু তাই নয় সেনা বলসম্পন্ন।

সেন্টার ফর এয়ার পাওয়ার স্টাডিসে শুক্রবার উপস্থিত ছিলেন চিফ অফ ডিফেন্স বিপিন রাওয়াত। দেশ তখনই শক্তিসম্পন্ন হয় যখন প্রত্যেক আধিকারিক সমানভাবে প্রশিক্ষিত হয়, এমনটাই জানিয়েছেন প্রাক্তন সেনাপ্রধান।

রাওয়াত জানান যে, পাকিস্তানকে সবসময়ই কড়া চাপের মধ্যে রাখা দরকার। তিনি বলেন, “আমাদের সর্বদা প্রস্তুত থাকতে হবে। তার জন্য জল, স্থল ও বায়ুসেনাকে আরও দক্ষ হতে হবে বিভিন্ন বিষয়ে।

তিনি আরও জানান যে কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় সামরিক নেতৃত্বের ইচ্ছামত এবং রাজনৈতিক নেতৃত্বের ইচ্ছা থেকেই বিশ্বাসযোগ্য অচলতা আসে এবং কার্গিল, উরি আক্রমণ এবং পুলওয়ামার আক্রমণের পরে তা স্পষ্ট হয়েছিল।