নয়াদিল্লি: ২৬ ফেব্রুয়ারি পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে জইশ ই মহম্মদের ক্যাম্পের এয়ারস্ট্রাইক করে ভারতীয় বায়ুসেনা৷ সেই প্রসঙ্গেই মুখ খুললেন ভারতীয় বায়ুসেনা প্রধান বিএস ধানওয়া৷ এদিন তিনি বলেন বালাকোটের এয়ার স্ট্রাইক আরও সাফল্য পেত, যদি বায়ুসেনার হাতে রাফায়েল জেট থাকত৷

এক সেমিনারে বায়ুসেনা প্রধান বলেন প্রযুক্তিগত দিক থেকে রাফায়েল জেটের জবাব নেই৷ তাই বালাকোটের আগেই যদি এই জেট বিমান ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে চলে আসত, তাহলে জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়া আরও সহজ হত৷ ইতিমধ্যেই মিগ-২১, বাইসন, মিরাজ-২০০০ দিয়ে বালাকোট এয়ারস্ট্রাইক পরিচালনা করা হয়৷

১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জইশের আত্মঘাতী জঙ্গি হামলা করে৷ এই ঘটনায় পুলওয়ামায় সিআরপিএফের ৪০ জন জওয়ান শহিদ হন৷ তার পর গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় বায়ুসেনা জইশের বালাকোটের ক্যাম্পে এয়ারস্ট্রাইক করে৷

একটি রিপোর্টে দেখা যায়, প্রত্যাঘাতের আগে ওই জঙ্গি শিবিরে ২৬৩ জন জঙ্গি ছিল৷ এছাড়া আরও ১৮ জন জইশ কমান্ডার ছিল৷ তাদের কাজ ছিল জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দেওয়া৷ পদ অনুযায়ী জঙ্গিদের বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছিল৷ যেমন ৮৩ জন জঙ্গি প্রাথমিক ট্রেনিং কোর্সের জন্য ভরতি হয়েছিল৷ ৯১ জনের অ্যাডভান্স ট্রেনিং চলছিল৷ এদের মধ্যে থেকে ২৫ জন জঙ্গিকে ফিঁদায়ে হামলার জন্য নির্বাচন করা হয়েছিল৷ ভারতের বায়ুসেনা বালাকোটের জঙ্গি শিবিরে স্পাইস বোমা ফেলে৷

তাতে জইশের আইইডি ও ভিডিও বিশেষজ্ঞ সহ অনেক জঙ্গির মৃত্যু হয়৷ যারা আহত হয় তাদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷