নয়াদিল্লি: ৭০ তম গণতন্ত্র দিবসের প্রাক্কালেই হয়ে গিয়েছিল ঘোষণা। সোমবার রাষ্ট্রপতি ভবনে এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে পুরস্কার প্রাপকদের হাতে তুলে দেওয়া হল ২০১৯ পদ্ম সম্মান। অসামান্য অবদানের জন্য বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে ৪৭ জনকে পদ্ম সম্মানের তালিকাভুক্ত করেছিল ভারত সরকার। তাঁর মধ্যে ক্রীড়াক্ষেত্র থেকে পদ্ম সম্মানের জন্য বাছাই করা হয়েছিল ৯ জনকে।

এদিন রাষ্ট্রপতি ভবনে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের হাত থেকে পদ্ম স্মারক গ্রহণ করলেন শরথ কমল-বজরং পুনিয়ারা। পাশাপাশি পদ্মশ্রী সম্মান গ্রহণ করতে রাষ্ট্রপতি ভবনে সোমবার উপস্থিত ছিলেন গ্র্যান্ডমাস্টার হারিকা দ্রোণাভালি ও কবাডি মাস্টার অজয় ঠাকুর।

চলতি বছর ক্রীড়াক্ষেত্রে দেশের তৃতীয় নাগরিক সম্মান পদ্মভূষণে ভূষিত হন পর্বতারোহী বাচেন্দ্রি পাল। পাশাপাশি দেশের চতুর্থ নাগরিক সম্মান পদ্মশ্রী সম্মানে সম্মানিত হন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর, ভারতীয় ফুটবলের পোস্টার বয় সুনীল ছেত্রী, প্যাডলার শরথ কমল, কবাডি মাস্টার অজয় ঠাকুর, দাবাড়ু হারিকা দ্রোণাভালি, কুস্তিগির বজরং পুনিয়া প্রমুখ।

দেশের চতুর্থ সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মানে ভূষিত হওয়া কুস্তিগির বজরং পুনিয়ার হাতে এদিন ‘পদ্মশ্রী’ সম্মান তুলে দেন রাষড়পতি রামনাথ কোবিন্দ। ২০১৮ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে রুপো জয়ের পাশাপাশি গতবছর জাকার্তা এশিয়াডে ৬৫ কেজি বিভাগে দেশকে সোনা এনে দিয়েছিলেন বজরং। গতবছর কমনওয়েলথ গেমসেও একই বিভাগে সোনা এসেছিল এই কুস্তিগিরের হাত ধরে।

এছাড়াও এদিন পদ্মশ্রী গ্রহণ করলেন ২০১৮ কমনওয়েলথ গেমসে দলগত বিভাগে দেশকে সোনা এনে দেওয়া শরথ কমল। ২০০৬ মেলবোর্ন কমনওয়েলথ গেমসে ব্যক্তিগত বিভাগে সোনা ছিল এই চেন্নাইয়ান প্যাডলারের। সোমবার ‘পদ্মশ্রী’ সম্মান গ্রহণ করলেন ক্রীড়াক্ষেত্রে আরও দুই মহারথী গ্র্যান্ডমাস্টার হারিকা দ্রোণাভালি ও ২০১৬ দেশের কবাডি বিশ্বজয়ের নায়ক অজয় ঠাকুর।

উল্লেখযোগ্যভাবে চলতি বছর দেশের তৃতীয় নাগরিক সম্মান ‘পদ্মভূষণে’ সম্মানিত হয়েছেন দেশের প্রথম মহিলা এভারেস্ট জয়ী বাচেন্দ্রি পাল। বছর চৌষট্টির এই পর্বতারোহী চতুর্থ নাগরিক সম্মান পদ্মশ্রীতে সম্মানিত হয়েছিলেন আগেই। এছাড়াও দীর্ঘ ১৩ বছরের বর্ণময় কেরিয়ারে ব্যাট হাতে ভারতীয় ক্রিকেটকে সেবা করার জন্য ‘পদ্মশ্রী’ সম্মানে সম্মানিত হন গৌতম গম্ভীর। দেশের জার্সি গায়ে ১৪৭টি ওয়ান ডে ও ৪৮টি টেস্ট খেলেছেন গম্ভীর। ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ও ২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনালে ম্যাচ জয়ে তাঁর অনবদ্য ভূমিকা আজও গেঁথে রয়েছে ক্রিকেট অনুরাগীদের মনে।

পদ্মশ্রী সম্মানে সম্মানি হয়েছেন দেশের জার্সি গায়ে সর্বোচ্চ গোলস্কোরার সুনীল ছেত্রীও। শুধুমাত্র সর্বোচ্চ গোলস্কোরারই নন মেন ইন ব্লু জার্সিতে সর্বোচ্চ ১০৭ ম্যাচে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করে বাইচুং ভুটিয়ার সঙ্গে এই মুহূর্তে একাসনে তিনি। ১০৭ ম্যাচে তাঁর নামের পাশে লেখা রয়েছে ৬৭টি গোল। তবে প্রথম চারটি নাম ছাড়া এদিন পুরস্কার গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না বাকিরা।