একসময়ে মধ্যবিত্ত ভারতীয়দের কাছে বাজাজ চেতক ছিল প্রবল জনপ্রিয়। নস্টালজিকতা মানেই বারবার ঘুরে ফিরে আসে এই চেতক। হালফিলের নামীদামী বাইক বা স্কুটারের সঙ্গে তাল না রাখতে পেরে এক সময়ে ভারতের বাজার থেকে হারিয়ে যায় চেতক।

এই পুরনো স্কুটারকে আগেই নতুনভাবে ফিরিয়ে আসার কথা বলেছিল বাজাজ কর্তৃপক্ষ। নতুন ইলেকট্রিক এই স্কুটার এক চার্জেই চলতে পারবে একশ কিলোমিটার।নতুন এই স্কুটারে থাকছে ৪ কেডবলু ইলেকট্রিক মোটর। এই মোটরের সঙ্গের থাকছে আইপি৬৭ লিথিয়াম ব্যাটারি।

আরও পড়ুন – দিনে মাত্র ৭৭ টাকাতে নতুন বাইক, জানুন সমস্ত জরুরি তথ্যগুলি

এই নতুন স্কুটারে থাকছে ইকো এবং স্পোর্ট এই দুই মোডের সুবিধা। ইকো মোডে এক চার্জে এই স্কুটারের মাইলেজ পাওয়া যাবে ১০০ কিলোমিটার। অন্যদিকে স্পোর্ট মোডে মাইলেজ পাওয়া যাবে ৮৫ কিলোমিটার।
দেশে বৈদ্যুতিক গাড়ির বাজার বাড়ানোয় আগেই জোর দিয়েছিল কেন্দ্র। এই ভাবনা নিয়ে তীব্র আপত্তি থাকলেও অবশেষে বাজাজ চেতককে নতুন রূপে ফিরিয়ে আনার কথা সামনে আনে। এই প্রসঙ্গে সংস্থার এমডি রাজীব বাজাজ বলেন, নতুন ব্যবসায় প্রথম পা রেখে এগিয়ে থাকার সুবিধা পেতেই তাঁদের এই উদ্যোগ। সেই সূত্রেই ফিরছে ৭০-এর দশকে ‘হামারা বাজাজ’ প্রচারের মাধ্যমে সাড়া ফেলা স্কুটার ‘চেতক’।

বছর কয়েক ধরে একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেশের রাস্তায় পুরোদস্তুর বৈদ্যুতিক গাড়ির চালানোর উপর জোর দিচ্ছিলেন। বৈদ্যুতিক গাড়ির অন্যতম সমর্থক কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণমন্ত্রী নিতিন গডকড়ী ও নীতি আয়োগের সিইও অমিতাভ কান্ত স্কুটারটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে উপস্থিত ছিলেন। বাজাজ কর্তা রাকেশ শর্মার বক্তব্য, তাঁদেরও মনে হয়েছে বৈদ্যুতিক গাড়ি ঘিরে সম্ভাবনা বাড়ছে।

আগামী ১৪ই নভেম্বর পুনেতে নতুন এই স্কুটারটির ওই শহরের নানা শোরুমে আসবে বলে জানিয়েছে বাজাজ কর্তৃপক্ষ।