স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রাজ্যে করোনা সংক্রমণ ক্রমশ বাড়ছে। হাওড়ায় কোভিড পরিস্থিতিও যথেষ্ট উদ্বেগের। এই পরিস্থিতিতে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ পরে থাকা বালির তিনটি হাসপাতালকে কোভিডের জন্য কাজে লাগানোর দাবি জানালেন স্থানীয় বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়া।

অনেকদিন ধরেই বন্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে পুরসভা পরিচালিত বালি কেদারনাথ হাসপাতাল।হাসপাতালটি সংস্কারের জন্য ২০১৮ সালে বন্ধ হয়। পুরবোর্ড ভেঙে যাওয়ার কাজ বন্ধ হয়ে গিয়েছে। পাশাপাশি প্রায় ১৬ বছর ধরে বন্ধ হয়ে রয়েছে জন সেবায়তন নার্সিংহোম। বেলুড় স্টেশনের পাশে সরকারি হাসপাতালে বেশ কিছু বিল্ডিং ফাঁকা পড়ে রয়েছে।

বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়া জানান, তিনি কেদারনাথ হাসপাতাল খোলার আবেদন জানিয়েছেন। বৈশালীর কথায়, সামান্য সংস্কার করে এই হাসপাতালটি করোনার মোকাবিলায় ব্যবহার করা যেতে পারে। হাসপাতালের অভাব মেটাতে শীঘ্র চালু করার জন্য দাবি করেন তিনি।

এদিকে, ২০০৪ সালে ডাক্তার সুশীল পাল হত্যার ঘটনায় বন্ধ করে দেওয়া হয় জন সেবায়তন নার্সিংহোম। চিকিৎসক খুনে সিপিএম নেতা, চিকিৎসক-সহ মোট বারোজনের সাজা হয়। পরে হাই কোর্টের নির্দেশে জামিন হয় তাদের। তারপরেও এত বড় হাসপাতালটি বন্ধ।

আইনি জটিলতা কাটিয়ে সেই হাসপাতালটিকেও চালু করার ব্যবস্থার জন্য বৈশালী স্বাস্থ্য দফতরের কাছে আবেদন জানাবেন বলেও জানিয়েছেন।

বালির বাসিন্দারা সহমত জানিয়েছেন এই দাবিতে। স্থানীয়দের বক্তব্য, মানুষের দানে গড়ে ওঠা হাসপাতালটি জন সাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হোক। সরকারি উদ্যোগে পরিকাঠামো তৈরি করে হাসপাতাল চালানোর দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান ডাক্তার নির্মল মাজি জানিয়েছেন, হাসপাতালগুলো কাজে লাগানোর জন্য তিনি স্বাস্থ্য সচিবের কাছে আবেদন জানাবেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।