স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: যে কাজ আগের মেয়র সাড়ে আট বছরে করতে পারেননি, সেই কাজ ফিরহাদ এক বছরে করে দিয়েছেন৷ এভাবেই মেয়র ফিরহাদ হাকিমকে কটাক্ষ করলেন প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়৷

বৃহস্পতিবার রাতে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নামে যে ব্যানার পড়েছিল, তাতে কোথাও বলা হয়, ‘‘কলকাতার বেহাল দশাকে পুনরায় স্বমহিমায় ফিরিয়ে আনতে আপনি এগিয়ে আসুন শোভনদা।’’ কোনওটায় আবার বলা হয়, ‘‘অসম্পূর্ণ কলকাতার পৌরসভাকে পুনরায় স্বমহিমায় আনতে ফিরে আসুন শোভনদা।’’সেই ব্যানারে পদ্মফুলের ছবি থাকলেও রাজ্য বিজেপি দাবি করে তাদের তরফে কোনও এধরণের ব্যনার দেওয়া হয়নি৷ কিন্তু বিষয়টিকে পরোক্ষ সমর্থন করে তারা৷ ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে তুলনা টেনে শোভন চট্টোপাধ্যায়কেই যোগ্য মেয়র হিসেবে দাবি করেন দিলীপ ঘোষরা৷

এরপরই ফিরহাদ বলেন, “আমার আমলে যে সংস্কারগুলো হয়েছে, সেগুলো তো বিরোধীরা বলবেন না। যে স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ হচ্ছে, কাউকে ধরাধরি করতে হচ্ছে না, সে সবও তো বলবেন না বিরোধীরা।’’ কলকাতা পুরসভাকে এই মুহূর্তে দেশের সেরা পুরসভা বলেও উল্লেখ করেন ফিরহাদ।

বর্তমান মেয়রের এই বক্তব্য শোনার পর বৈশাখী বলেছেন, ”ফিরহাদ হাকিমের কাছে এ রকম একটা জাদুদণ্ড আছে জেনে আমি খুব খুশি হলাম। যে কাজ আগের মেয়র সাড়ে আট বছরে করতে পারেননি, সেই কাজ ফিরহাদ এক বছরে করে দিয়েছেন, এটা তো খুব খুশির খবর। কলকাতাবাসী হিসাবে খুব আশ্বস্ত বোধ করছি যে, আমাদের বর্তমান মেয়র এতখানি দক্ষ। ভবিষ্যতের জন্যও তাঁকে আমার শুভেচ্ছা রইল।”

বলে রাখি, পুরভোটের আগে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নামে এমন পোস্টার দেখে খুশি হয়েছিলেন তাঁর ঘনিষ্ট বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি বলেন, ‘‘শোভনবাবুকে মানুষ যে ভালবাসে, সেটার প্রভাব এটা। ভাল লাগছে এটা দেখে। দল বুঝি না, কিন্তু পোস্টার লাগানোর ক্ষেত্রে তো কোনও না কোনও কর্মী থাকেন, নেতারা তো পোস্টার লাগান না, সুতরাং কর্মীদের কাছে এখনও যে উনি আস্থাভাজন, সেটাই বড় প্রাপ্তি শোভনের’’।

বৈশাখী এও জানিয়েছিলেন যে তিনি রাস্তায় বেরিয়ে শোভনের পোস্টার দেখতে চান। বৈশাখী বলেন, ‘‘নিজে এখনও রাস্তায় বেরিয়ে শোভনের পোস্টার দেখিনি। রাস্তায় বেরিয়ে দেখব পোস্টার। মোবাইলে ছবিতে দেখলাম। একসময়ের ওঁর হোয়াটস অ্যাপের ডিপি-র ছবিটা ব্যবহার করা হয়েছে’’।
বৈশাখীর আনন্দের মধ্যেই পাল্টা ব্যানার পড়ল ফিরহাদ হাকিমকে আবার মেয়র হিসেবে চেয়ে৷ স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনায় চটেছেন শোভন-বান্ধবী৷

উল্লেখ্য,‘শোভনদা ফিরে আসুন’-এই ব্যানার নিয়ে শুক্রবার দিনভর সরগরম থেকেছে কলকাতার রাজনীতি। কিন্তু শনিবার, উত্তর কলকাতা জুড়ে ফিরহাদ হাকিমকে নিয়ে দেখা গেল পাল্টা ব্যানার। তাতে লেখা, ‘ববিদাকেই আবার চাই’। এখানেও কোনও দলের নাম নেই। লোগোও নেই। প্রচারক হিসেবে ‘কলকাতার নাগরিক বৃন্দের পক্ষ থেকে’ যে নাম দেওয়া হয়েছে, সে নামে চেতলা অঞ্চলে ফিরহাদের ঘনিষ্ঠ এক তৃণমূল নেতা রয়েছেন।যদিও বিষয়টিকে খুব একটা গুরুত্ব দিতে নারাজ ফিরহাদ হাকিম। তাঁর কথায়,”আমার মনে হয় ইয়ারকি, ঠাট্টা করছে। আমরা দলের সদস্য। দল ঠিক করবে। দলের সৈনিক।”