স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিধানসভা নির্বাচনের আগে যেভাবেই হোক শোভন চট্টোপাধ্যায়কে দলে সক্রিয় করতে চাইছে রাজ্য বিজেপি। সেই কারণেই তাঁকে খুশি করতে শেষ পর্যন্ত বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে দলে জায়গা দেওয়া হল। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন, বৈশাখীকেও কর্মসমিতির অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার অর্থাৎ ৮ সেপ্টেম্বর রাজ্য বিজেপির কর্মসমিতির তালিকা অনুমোদন করেছিলেন সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেই তালিকায় শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নাম থাকলেও বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়ের নাম ছিল না। অথচ রাজ্য কমিটির যে তালিকা প্রকাশিত হয়েছে, তাতে অনেক নতুন মহিলা মুখ দেখা গিয়েছে। যেমন, জোতির্ময়ী শিকদার, অর্চনা মজুমদার, দেবযানী সেনগুপ্ত, প্রফেসর বীথিকা মণ্ডল, বিশ্বভারতীর প্রফেসর পুষ্পিতা, বিশিষ্ট ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ মধুছন্দা কররা কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন।

এতেই চরম ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন শোভন। সংবাদমাধ্যমে অসন্তোষও প্রকাশ করেছিলেন তিনি।শোভন চট্টোপাধ্যায়ের আসল ক্ষোভ যে বৈশাখীর পদ না পাওয়া তা বুঝতে অসুবিধা হয়নি বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের। তারপরই বুধবার রাতের মধ্যেই শোভনের পাশাপাশি বৈশাখীর কাছেও পৌঁছে গেল বিজেপির রাজ্য কর্মসমিতি বৈঠকে যোগ দেওয়ার ভার্চুয়াল লিঙ্ক।

বলে রাখি, মাহেশ্বরী সদনে বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টা থেকে বিজেপির কর্মসমিতির বৈঠক ছিল। সবাইকে অবশ্য মাহেশ্বরী সদনে উপস্থিত হতে বলা হয়নি। করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে অধিকাংশকেই বলা হয়ে ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে বাড়ি থেকেই বৈঠকে যোগ দিতে। দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নড্ডাও দিল্লি থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বৈঠকে ভাষণ দিয়েছেন।

কর্মসমিতির সদস্য না হয়েও বৈশাখীকে বৈঠকে আমন্ত্রণ পেলেন কীভাবে? সংবাদমাধ্যমের সেই প্রশ্নের উত্তরেই দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‘বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কেও কর্মসমিতির অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে’’ কিন্তু মঙ্গলবার প্রকাশিত তালিকায় তো বৈশাখীর নাম ছিল না। দিলীপ বলেন, ‘‘অধিকাংশ নাম ঘোষণা হয়েছিল। কয়েকটা হয়নি। সেগুলো আজ, বৃহস্পতিবারই ঘোষণা হয়ে যাবে।’’

রাজনীতিতে অভিজ্ঞ শোভন চট্টোপাধ্যায়কে শুরু থেকেই গুরুত্ব দিতে চেয়েছেন দিলীপ ঘোষেরা। কিন্তু শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বান্ধবী তথা অধ্যাপিকা বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে তাঁদের তেমন কোনও উৎসাহ নেই। রাজ্য বিজেপির একাধিক পদক্ষেপেই তা বোঝা গিয়েছে।

এর আগে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে সম্বর্ধনার আমন্ত্রণ জানানো হলেও সেই আমন্ত্রণপত্রে নাম ছিল তাঁর প্রিয় বান্ধবী অধ্যাপিকা বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের। সেইসময় দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, “আমরা জানি যেমন ভাত-ডাল তেমন শোভনদা আর বোইশাখীদি। আলাদা করে বলার কী আছে?”

ওই সময়ও বেঁকে বসেছিলেন শোভন। বলেছিলেন, তাঁর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ না জানালে তিনিও সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে যাবেন না। এবারও দলের উপর তিনি চাপ বাড়িয়েছেন বলেই পর্যবেক্ষকদের মত।

শোভন চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে টানাপড়েন এক বছর ধরে চলছে বিজেপিতে। দলে যোগ দিয়েও শোভন সক্রিয় হননি। কিন্তু এখন সে পরিস্থিতি বিজেপি আর জিইয়ে রাখতে চাইছে না। তাই এ বার বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কেও রাজ্য কর্মসমিতিতে শামিল করে নেওয়া হল। ফলে অসন্তোষ দূর করে শোভন বিজেপিতে খুব তাড়াতাড়ি সক্রিয় হবেন বলেও মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একটা বড় অংশ।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।