মানামা: ইসরাইলের বিমান চলাচলের জন্য সৌদি আরবের পর এবার বাহারিন তার আকাশসীমা উন্মুক্ত করে দিচ্ছে। মার্কিন কর্তাদের বাহরাইন সফরের ঠিক পরেই মানামা এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

বাহরিনের পরিবহন ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্রের মাধ্যমে দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থা এক রিপোর্টে জানিয়েছে, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে আসা এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের দিকে যাওয়া সমস্ত বিমানকে বাহরিন তাদের আকাশসীমা ব্যবহার করার অনুমতি দেবে।

এর আগে বুধবার সৌদি আরবের বিমান কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে সৌদি রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা এসপিএ জানিয়েছে, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইসরাইল অভিমুখী সমস্ত বিমানকে আকাশসীমা ব্যবহারের সুযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সৌদি সরকার।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ আগস্ট ইসরাইল ও সংযুক্ত আরব আমিরাত সম্পর্ক স্বাভাবিক করার জন্য একটি চুক্তিতে পৌঁছয়। এরপর গত সোমবার একটি প্রতিনিধিদলকে নিয়ে প্রথমবারের মতো ইসরাইলি বিমান সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে পৌঁছায়।

এর পরদিন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাই এবং শীর্ষ উপদেষ্টা জারেড কুশনার বাহরিন সফর করেন। তারই‌ জেরে দেখা গেল বাহারিনের আকাশ পথ খুলে গেল ইসরাইলের জন্য।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।