স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: শিশু বদলের অভিযোগকে ঘিরে তুলকালাম কোচবিহারের এমজেএন হাসপাতালে৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে আসে বিরাট পুলিশবাহিনী৷ অভিযোগ, এক প্রসূতি পুত্রসন্তানের জন্ম দেন৷ কিন্তু পরে সেই সন্তান বদলে শিশুকন্যা দেখানো হয় পরিবারকে৷ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অবশ্য জানিয়েছে, লিখিত অভিযোগ পেলে ঘটনা খতিয়ে দেখা হবে৷

গত শনিবার রাতে দিনহাটার পেটলার বাসিন্দা সন্তানসম্ভবা সাহিনুর খাতুন এমজেএন হাসপাতালে ভর্তি হন৷ সেদিনই সন্তানের জন্ম দেন এই প্রসূতি৷ সাহিনুর ও তাঁর পরিবারের দাবি, পুত্রসন্তানের জন্ম দেন সাহিনুর৷ কিন্তু জন্মের পর শিশুটি শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় এনআইসিইউতে রাখা হয়৷

আরও পড়ুন: ‘টাকা নিয়ে চরিত্র নষ্ট করতে নেই,’ টিএমসিপি-কে পরামর্শ মমতার

এই ঘটনার তিনদিন পর মঙ্গলবার পরিবারকে শিশুটিকে দেখতে দেওয়া হয়৷ পরিবারের অভিযোগ, তিনদিন পর একটি কন্যাসন্তান দেখানো হয় তাঁদের৷ এরপরই হাসপাতালে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন বাড়ির লোকজন। যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করা হলে তাঁরা ঘটনার তদন্ত করবে৷

সাহিনুর খাতুনের দাবি, তাঁর পুত্রসন্তান হয়েছিল৷ হঠাৎ তিনদিন পর ছেলের জায়গায় মেয়ে দেখানো হচ্ছে৷ তাঁর অভিযোগ, ছেলেকে বদলে ফেলেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। একই দাবি ওই প্রসূতির মায়েরও৷ তিনি বলেন, জন্মের কিছুক্ষণ পর অসুস্থ শিশুটিকে যখন এনআইসিইউতে নিয়ে যাই তখনই দেখি আমার মেয়ের পুত্র সন্তান হয়েছে। কিন্তু এদিন এনআইসিইউতে শিশুটিকে দেখতে গিয়ে দেখি মেয়ে৷

আরও পড়ুন: লাল কার্ড দেখে ট্র্যাক থেকে ছিটকে গেলেন হিমা দাস

তাঁরও দাবি, এখানে শিশু বদল হয়েছে। যদিও এ বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, প্রসূতির পরিবারের পক্ষ থেকে কোনও লিখিত অভিযোগ করা হয়নি৷ অভিযোগ হলে তা তদন্ত করে দেখা হবে। হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত সুপার স্বপন সরকার বলেন, এখন বিভিন্নরকম পরীক্ষা রয়েছে৷ তাই কোনও শিশুর প্রকৃত পরিচয় জানাটা এখন আর তেমন কঠিন ব্যাপার নয়৷ প্রয়োজনে তা করা হবে৷