স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: লকডাউন কার্যকর করতে গিয়ে হাওড়ার বেলিলিয়াস রোডে আক্রান্ত পুলিশ। ঘটনার তীব্র নিন্দা করে টুইট করলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা আসানসোলের বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়।

টুইটারে ওই গণ্ডগোলের একটি ভিডিও পোস্ট করে বাবুল লিখেছেন, ” এই দেখুন দিদির ভোট ব্যাঙ্ক। পুলিশ কি ভাবে পালাচ্ছে নিজের চোখে দেখুন। কোনো মন্তব্ব্য নিষ্প্রয়োজন।

কয়েক ঘন্টা আগে একটি ভিডিওম্যাট করেছিলাম- কিছু #TMছিঃ ওদের ‘মাতৃভাষায়’ বললো ওটা পুরোনো ভিডিও হতে পারে-এটা কিন্তু আজকের দিদির ‘অনুপ্রেরণায়’ এগিয়ে চলেছে বাংলা-এটাই তো তার টেম্পলেট।”
উল্লেখ্য, লকডাউন কার্যকর করতে গিয়ে হাওড়ার টিকিয়াপাড়ার কন্টেনমেন্ট জোন বেলিলিয়াস রোডে রাস্তায় নামা জনতাকে নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে আক্রান্ত হল পুলিশ। এই ঘটনায় দুই পুলিশকর্মী আহত হয়েছেন। ভাঙচুর করা হয়েছে পুলিশের দুটি গাড়ি। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত গ্রেফতার হয়েছে ছ’জন।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, যে বেলিলিয়াস রোড এলাকাটি হাওড়া থানার অধীন। বিকেল চারটে নাগাদ সেখানে একটি বাজারে ফল কেনা নিয়ে বেশ কয়েক জন লোককে জমায়েত করতে দেখে পুলিশ। এলাকাটিতে সম্পূর্ণ ভাবে লকডাউন চলছে। তার মধ্যে এই অবস্থা দেখে লাঠি উঁচিয়ে তেড়ে যায় পুলিশ। তবে ওই যুবকরা সরে না গিয়ে উল্টে পুলিশের উপরে চড়াও হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে নামানো হয় ব়্যাফ।

ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন রাজ্যের মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “এই ঘটনা একেবারেই সমর্থনযোগ্য নয়। অত্যন্ত নিন্দনীয় ও গর্হিত কাজ। করোনার সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে গিয়ে যদি পুলিশকে এই ভাবে আক্রান্ত হতে হয় নিশ্চিত ভাবে এর চেয়ে ঘৃণার কিছু হতে পারে না। প্রশাসনকে বলেছি কঠোর ভাবে এটা দেখার জন্য। যেখানে যা ব্যবস্থা নেওয়ার উপযুক্ত ব্যবস্থা নিক। এই ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না হয় সেজন্য আমরাও দলীয় ভাবে দেখব এবং সেখান কার মানুষের সঙ্গে কথা বলে দেখব যে কেন এটা হয়েছে। এটা সমর্থনযোগ্য নয় এবং এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ