স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বারবার বঞ্চনার অভিযোগ করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তাঁর অভিযোগ উড়িয়ে দিলেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ করেছেন মমতা বলেছেন, “একটা গ্লাভসও আমাদের দেয়নি কেন্দ্র। সব নিজেদেরই কিনতে হয়েছে”।

মুখ্যমন্ত্রীর এই কথার বিরোধিতা করে মোদী সরকার এরাজ্যের জন্য কী কী করেছে তার প্রমাণ দিলেন তিনি। বাবুল এ দিন বলেন, বাংলায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণের মোকবিলায় মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তাকে সাধুবাদ জানাচ্ছি। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ, “আপনি একাই কাজ করছেন আর কেন্দ্রীয় সরকার কিছু করছে না, এই ধারণাটা এই মুহূর্তে মানুষের মধ্যে ছড়াবেন না। তাতে মানুষ অসহায় বোধ করবে। বরং কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার মিলে যে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে এই বার্তাটাই যাওয়া উচিত”। এর পরেই ধরে ধরে হিসাব দেন বাবুল। তিনি বলেন, এটা হিসাব দেওয়ার সময় নয়। কিন্তু এই সংকটের পরিস্থিতিতেও মুখ্যমন্ত্রীর মিথ্যাচার মানুষের সামনে তুলে ধরার জন্যই এটা করতে হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানান, “মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, কেন্দ্র থেকে একটা গ্লাভসও দেয়নি। অথচ কেন্দ্র মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজকে ২০০ টেস্ট কিট দিয়েছে। আইপিজিএমইআর কলকাতায় ১২৫ কিট আছে। বেলেঘাটার নাইসেডে ২০টা কিট আছে। এখানকার জন্য আরও ১০০০ টেস্ট কিট আইসিএমআর এনআইভি পুনে থেকে বৃহস্পতিবার পাঠিয়ে দিয়েছে। নিশ্চয় এতদিনে তা বেলেঘাটা আইডি পেয়ে গিয়েছে। তা ছাড়া উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজেও ২০০ কিট পৌঁছে গেছে। সুতরাং ২৫০০ এর মতো কিট কলকাতায় রয়েছে”।

শুধু এই টেস্ট কিট নয়, আরও কিছু সুবিধা কেন্দ্র পাইয়ে দিয়েছে বলে দাবি করেছেন বাবুল। তিনি বলেন, “২৪ মার্চ লেবার মন্ত্রকের তরফে একটা অ্যাডভাইজরি দিয়ে বলা হয়েছিল, শ্রমিক কল্যাণ বোর্ডের কাছে ৩১ হাজার কোটি টাকা জমা রয়েছে। এই টাকা সাড়ে ৩ কোটি অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের পাওয়ার কথা। সব মুখ্যমন্ত্রীদের কাছে চিঠি পাঠিয়ে বলা হয়েছে সেই টাকা যেন শমিকদের দেওয়া হয়।

আর তার পরই দেখা গেল, বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করলেন, বাংলায় প্রচেষ্টা প্রকল্পের আওতায় অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের হাজার টাকা করে দেওয়া হবে। অথচ সেটা কিন্তু কেন্দ্রেরই প্রকল্প।” এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশ্যে বাবুল সুপ্রিয় বলেন, এই মুহূর্তে অন্তত ‘ছোট রাজনীতি’ করবেন না।