লখনউ: অযোধ্যার বিতর্কিত জমি স্থানান্তর করা যায় না, জানিয়ে দিল মুসলিম ল বোর্ড। শনিবার সকালে নিজেদের মধ্যে আলোচনায় বসে অল ইন্ডিয়া মুসলিম পারসোনাল ল বোর্ডের (এআইএমপিএলবি) কার্যকরী কমিটি। সেই আলোচনার পর জানানো হয়, শরিয়তের আইন মসজিদের জন্য উৎসর্গীত জমি স্থানান্তরণের অনুমতি দেয় না।

উত্তরপ্রদেশের রাজধানী লখনউ-এর দারুল উলুম নদভীতে এই মিটিংটির সভাপতিত্ব করেন মৌলানা মহম্মদ রাবে হাসান। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন খালিদ রাশিদ ফিরিঙ্গি। অযোধ্যা ইস্যুতে তাঁদের বক্তব্য, “মুসলিম সম্প্রদায় সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যে জমি মসজিদের জন্য উত্সর্গীকৃত, তার অবস্থানকে কোনওভাবেই পরিবর্তন, বা স্থানান্তর করা যায় না। শরিয়তের বিধান এর অনুমতি দেয় না। সুতরাং, কোনও মুসলিম এই রকম জমি আত্মসমর্পণ বা স্থানান্তর করতে পারবেন না। ”

উল্লেখ্য, আগামী ১৮ অক্টোবরের মধ্যে বাবরি মসজিদ মামলার শুনানি শেষ করার নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। তারপরে বাবরি মসজিদের জমি হিন্দুদের হাতে তুলে দেওয়ার কথা বলেছিলেন সংখ্যা লঘু সম্প্রদায়ের বেশ কিছু বিদ্বজনেরা। আর তারপরেই মিটিং ডেকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানাল অল ইন্ডিয়া মুসলিম পারসোনাল ল বোর্ড।

যোগী রাজ্যের মন্ত্রী মোহসিন রাজা অবশ্য বোর্ডের এই বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তাঁর দাবি, এই বৈঠক আদালতের বিরুদ্ধে। আদালত যেখানে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সেখানে কেন এই মিটিং হবে, সে বিষয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। এছাড়া তিনি বলেন, এই এআইএমপিএলবি সংগঠন এনআরসি-রও বিরোধিতা করেছিল।