নয়াদিল্লি: হাসপাতালে ভর্তি প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি তথা একসময়ের দেশের তাবড় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব প্রণব মুখোপাধ্যায়। তাঁর জন্য উদ্বেগের প্রহর গুনছে ভারতবাসী। আপাতত ভেন্টিলেশনে আছেন তিনি। অবস্থা সঙ্কটজনক। বাংলার বিভিন্ন জায়গায় তাঁর সুস্থতা কামনায় প্রার্থনা হচ্ছে।

তিনি কেমন আছেন, তা ট্যুইট করে জানালেন তাঁর ছেলে তথা কংগ্রেস নেতা অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়।

বুধবার একটি ট্যুইটে তিনি জানিয়েছেন, ‘আপনাদের সবার প্রার্থনায়, আমার বাবা হেমোডায়নামিক্যালি স্টেবল আছেন। তাঁর সুস্থতার জন্য সবাই প্রার্থনা করুন।’

এদিনই দিল্লির আর্মি রিসার্চ অ্যান্ড রেফারাল হাসপাতালের তরফে জানানো হয়েছে, প্রণব মুখোপাধ্যায়ের স্বাস্থ্যের অবস্থা এখনও সঙ্কটজনক। আপাতত তিনি ভেন্টিলেটরে আছে ও হেমোডায়নামিক্যালি স্টেবল রয়েছেন।’

শরীরের মধ্যে মূলত হৃদযন্ত্রে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকলে, তাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় হেমোডায়নামিক্যালি স্টেবল বলা হয়।

এদিন ট্যুইট করেন তাঁর মেয়ে শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায়ও। বুধবার নিজের ট্যুইটার হ্যাণ্ডেলে তিনি লিখেছেন, “গত বছর অগাস্টের ৮ তারিখ সবচেয়ে আনন্দের দিন ছিল, বাবা ভারতরত্ন পেয়েছিলেন। ঠিক একবছর পরে অগাস্টের ১০ তারিখ সঙ্কটজনক অবস্থায় রয়েছেন। বাবার জন্য যেটা সবচেয়ে ভালো ভগবান যেন তাই করে। আমি আনন্দ এবং দুঃখ সবকিছুর জন্য শক্তি রাখতে পারি। আমি মন থেকে সকলকে তাঁদের ভাবনার জন্য ধন্যবাদ জানাই”।

২০১৯ সালের অগাস্টের ৮ তারিখ রাষ্ট্রপতি ভবনে ভারতরত্ন সম্মানে ভূষিত হয়েছিলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। উপস্থিত ছিলেন দেশের শীর্ষ নেতৃত্বরা এবং অবশ্যই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

প্রণবকন্যার সঙ্গে ফোনে কথা বলে প্রণব মুখোপাধ্যায় স্বাস্থ্যের হালহকিকত জেনেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। হাসপাতালে পৌঁছে তাঁর খোঁজ নিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। রাহুল গান্ধী দ্রুত সুস্থতার বার্তা পাঠিয়েছেন।

পৈতৃক ভিটে বীরভূমের কীর্ণাহারে ইতিমধ্যেই দ্রুত সুস্থতা কামনায় ৭২ ঘণ্টার যজ্ঞ হয়েছে। সেখানে অংশগ্রহণ করেছেন তাঁর বোন এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্য সহ কাছের মানুষরা।

প্রথম বাঙালি রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। ২০১২ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি পদে ছিলেন তিনি। তবে গত কয়েকদিনে তাঁর রাজাজি মার্গের ঠিকানায় মানুষের আনাগোনা কমেছিলে অনেকটা। অতিমারীর জন্যই এই সতর্কতা নিয়েছিলেন তিনি। সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথাবার্তা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। হাতে গোনা কয়েকজন মানুষের সঙ্গেই দেখা করতেন তিনি।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।