সিডনি:  অস্ট্রেলিয়ায় নতুন করে একাধিক জায়গায় ফের দাবানলের পরিস্থিতি। আর তা নেভাতে গিয়ে মাঝ আকাশে ভেঙে পড়ল একটি বিমান। মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনায় তিন মার্কিন নাগরিক নিহত হয়েছেন। গত কয়েকদিন ধরে ফের তাপমাত্রা এবং প্রবল হাওয়ার বেগ বেড়ে যাওয়ায় নতুন করে দাবানল ছড়িয়ে পড়েছে পূর্ব অস্ট্রেলিয়ায়। আগুন নেভাতে কাজে নামে কানাডার কোম্পানি কোলসন অ্যাভিয়েশনের বিমানটি।

অস্ট্রেলিয়ায় গত সেপ্টেম্বরে শুরু হওয়া দাবানলে এখনও পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছে ২৮ জন মানুষ। বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৫০ কোটি প্রাণীরও মৃত্যু হয়েছে। অসংখ্য গাছ পুড়েছে, হাজার হাজার বনভূমি উজাড় হয়ে গিয়েছে ভয়ঙ্কর দাবানলে। ভস্মীভূত হয়েছে কয়েক হাজার বাড়িঘর। সে দেশের নিউ সাউথ ওয়েলসের মধ্য উপকূলীয় কুলনুরা এলাকায় ১৫৬ লাখ হেক্টর আয়তনের গাছপালা পুড়ে বৃহৎ আকারের খেলার মাঠের মতো ফাঁকা হয়েছে।

তবে গত ১৬ জানুয়ারি থেকে অস্ট্রেলিয়ায় ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হওয়ায় দাবানলের তীব্রতা কমতে থাকে। তবে বৃষ্টির কয়েকদিন আবহাওয়া শীতল থাকলেও বৃহস্পতিবার নিউ সাউথ ওয়েলসে তাপমাত্রা বেড়ে দাঁড়ায় ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। কোনও কোনও জায়গায় সেটি ছিল ১১০ ডিগ্রি। ফলে দুপুরের মধ্যে নতুন করে ৮০টির বেশি দাবানল ছড়িয়ে পড়ে রাজ্যটিতে।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট জানাচ্ছে, নতুন করে ছড়িয়ে পড়া দাবানল নেভাতে গেলে ক্যানবেরা থেকে ৭০ মাইল দক্ষিণে নিউ সাউথ ওয়েলসের পার্বত্য এলাকায় ভেঙে পড়ে সি-১৩০ হারকিউলিস বিমানটি। সেটিতে থাকা তিন মার্কিন স্বেচ্ছাসেবকই নিহত হয়েছেন। চার প্রপেলারের হারকিউলিস নামের ওই বিমানটি প্রতিবারে ১৫ হাজার লিটার জল বা আগুন প্রতিরোধকারী পদার্থ বহন করতে পারে। সে দেশের রুরাল ফায়ার সার্ভিস কমিশনার শেন ফিটৎসিমন্স জানিয়েছেন, ‘আমরা বিমানটির ধ্বংসাবশেষ হয়তো খুঁজে পাব। কিন্তু দুঃখের বিষয়, কোনও কর্মীকেই জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করতে পারব না।’