সাউদাম্পটন: দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ অভিযান শুরুর ঠিক আগে টিম ইন্ডিয়ার হেড কোচ রবি শাস্ত্রীকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোল করলেন অজি সাংবাদিক ডেনিস ফ্রিডম্যান৷ দুই তরুণীর সঙ্গে শাস্ত্রীর একটি ছবি টুইটারে পোস্ট করেন তিনি৷ ক্যাপশনে যে কথাগুলি লিখেছেন তিনি, তা ইঙ্গিতবহ৷ বলাবাহুল্য, তা কখনই শাস্ত্রীর প্রশংসা সূচক নয়৷ ডেনিসের কৌশলি এই টুইট নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷ নেটিজেনদের কেউ কেউ প্রকারান্তরে শাস্ত্রীর মুণ্ডপাত করেছেন৷ আবার কাউকে পাশে পেয়েছেন ভারতীয় কোচ৷

টিম হোটেলে দুই লাস্যময়ী তরুণীর সঙ্গে শাস্ত্রীর ছবিটির ক্যাপশনে ডেনিস লেখেন, ‘ভারতের বিশ্বকাপ প্রস্তুতি চলছে দারুণভাবেই৷’ এক্ষেত্রে শাস্ত্রীর নারীসঙ্গের দিকেই ইঙ্গিত ছিল স্পষ্ট৷ টুইটটি পোস্ট হওয়া মাত্রই প্রতিক্রিয়া দেখা দেয় নেটদুনিয়ায়৷

সুনীল সিং নামক টুইটার হ্যান্ডেল থেকে লেখা হয়, ‘কোচ দলের জন্য চিয়ারলিডারের ব্যবস্থা করছেন৷’ শফটেড নামক টুইটার অ্যাকাউন্ড থেকে প্রতিক্রিয়া আসে, ‘হার্দিক পান্ডিয়া কোথায় লুকিয়ে আছেন?’ এক্ষেত্রে জনপ্রিয় টক শো ‘কফি উইথ করণ’এ মহিলাদের সম্পর্কে হার্দিকের করা অপমানজনক মন্তব্যকেই ইঙ্গিতে সামনে আনা হয়েছে৷

প্লাবন তামুলি নামক টুইটার ব্যবহারকারী লেখেন, ‘জন রাইট, গ্যারি কার্স্টেন, অনিল কুম্বলের মতো মহান ব্যক্তিত্বরা একসময় ভারতীয় ড্রেসিংরুমে থাকতেন৷ সেই দিন এখন অতীত৷ এখন একজন মাতাল ধারাভাষ্যকার আমাদের কোচের ভূমিকায়৷ ভারতীয় ক্রিকেট ভুল একটা লোকের হাতে রয়েছে৷ গাঙ্গুলিই সঠিক ছিলেন৷’

দীপিকা কাপুর লেখেন, ‘শাস্ত্রীর হাতে একটা গ্লাসের অভাব চোখে পড়ছে৷’ পানামা পেপার্স নামক অ্যাকাউন্ট থেকে কটাক্ষ করে লেখা হয়, ‘শাস্ত্রী উঠতি মহিলা ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত কোচিং দিচ্ছেন৷’

ভারতীয় কোচের পাশে দাঁড়িয়ে অজি সাংবাদিককের দিকে পালটা কটাক্ষ ছুঁড়ে দিয়েছেন বিশ্বজিৎ ঘোষ নামর টুইটার ব্যবহারকারী৷ তিনি লেখেন, ‘ওরা (শাত্রীরা) অন্তত বল বিকৃতির মতো ঘটনায় জড়িয়ে পড়েনি৷’ অন্য একটি টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে লেখা হয়, শাস্ত্রী অন্তত প্লে-বয় ওয়ার্নের থেকে অনেক ভালো, দু’জন মহিলার সঙ্গে যার এমএমএস ফাঁস হয়ে গিয়েছিল৷

এক্ষেত্রে শাস্ত্রীর পাশে দাঁড়ানো ব্যক্তিদের থেকে তাঁর সমালোচকের সংখ্যাই বেশি ছিল৷ অতীতেও শাস্ত্রীর বিয়ারের বোতল হাতে দলের সঙ্গে ছবি প্রকাশ্যে আসায় বিস্তর সমালোচনা হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়৷ ভারতের কোচ নিযুক্ত হওয়া যাবৎ শাস্ত্রীকে নিয়ে বিতর্ক কম হয়নি৷ তবে টিম ইন্ডিয়ার সাফল্যে সাত খুন মাফ হয়ে গিয়েছে শাস্ত্রীর৷’