মুম্বই: প্রতিদিন একাধিক ক্রিকেটার করোনা আক্রান্ত হওয়ায় মঙ্গলবার অনির্দিষ্টকালের জন্য ২০২১ আইপিএল স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিসিআই৷ কিন্তু এতেও অজি ক্রিকেটার ও সাপোর্ট স্টাফদের দেশে ফেরে নিয়ে জট কাটছে না৷ কারণ অস্ট্রেলিয়া সরকারের ঘোষণা মতো ১৫ মে পর্যন্ত ভারত থেকে কোনও ব্যক্তি সে দেশে ঢুকতে পারবে না৷

মঙ্গলবার হঠাৎ করে চতুর্দশ আইপিএল স্থগিত হওয়ার পর অজি ক্রিকেটার ও সাপোর্ট স্টাফ এবং ধারাভাষ্যকারের দেশে ফেরা নিয়ে এক বিবৃতি দেয় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া৷ অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশন-এর এক যুগ্ম বিবৃতিতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তরফে জানানো হয়, “Cricket Australia and the Australian Cricketers’ Association understand the decision of the BCCI to indefinitely postpone the 2021 Indian Premier League for the safety and wellbeing of all participants.”

বিবৃতিতে আরও লেখা হয়, ‘ক্রিকেটার, কোচস ম্যাচ অফিসিয়াল এবং ধারাভাষ্যকরদের ভারতে নিরাপদ অ্যাকোমোডেশন এবং দেশে ফেরা নিয়ে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া সরাসরি বিসিসিআই-এর সঙ্গে কথা বলছে৷ কিন্তু একই সঙ্গে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশন সরকারের সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাচ্ছে৷ ১৫ মে-র আগে ভারত থেকে কেউ দেশে আসতে পারবে না৷’

শুধু তাই নয়, অস্ট্রেলিয়ায় ফেরার আগে শেষ ১৪ দিন ভারতে থাকলে সেক্ষেত্রে তাঁর জরিমানা এবং জেল হতে পারে বলেও সরকারের তরফে পরিষ্কার জানিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ সরকারের এই নিয়মের তীব্র সমালোচনা করেছিলেন প্রাক্তন অজি ক্রিকেটার তথা আইপিএলে ধারাভাষ্যকর হিসেবে ভারতে থাকা মাইকেল স্লেটার৷ কিন্তু এর প্রতিক্রিয়া হিসেবে অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন পরিষ্কার জানিয়ে দেন সরকার সিদ্ধান্ত অনঢ় থাকবে৷

ভারতে করোনা সংক্রম ক্রমশ বৃদ্ধি পাওয়ার পরই ইউরোপের বিভিন্ন দেশের পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়া সরকারও ভারতের সঙ্গে বিমান চলাচল বন্ধ করে দেয়৷ এই আশঙ্কাতেই আইপিএলের মাঝেই দেশে ফিরে গিয়েছেন তিন অজি ক্রিকেটার৷ এখনও ১৪ জন ক্রিকেটার, কোচ রিকি পন্টিং এবং সাইমন কাটিচ ভারতের আইপিএলের বায়ো-বাবেলে রয়েছেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.