মেলবোর্ন: টেবিলে বসে আছেন গণেশ। আর তাঁর প্লেটে ভেড়ার মাংস। অস্ট্রেলিয়ার এক সংস্থার এই বিজ্ঞাপন ঘিরে শুরু হয়েছে চরম বিতর্ক। Meat and Livestock Australia’s (MLA) নামে ওই সংস্থার বিজ্ঞাপনকে কেন্দ্র করে রীতিমত তোলপাড় হচ্ছে ট্যুইটারে। যত দ্রুত সম্ভব ওই বিজ্ঞাপন সরিয়ে নেওয়ার দাবিও তুলেছেন অনেকেই।

বিজ্ঞাপনে দেখা যাচ্ছে, ভগবান, নবী, খ্রিষ্ট ধর্মগুরু, বৌদ্ধ লামা সবাই এক টেবিলে বসে খাওয়া-দাওয়া করছেন। যেখানে বার্তা দিতে চাওয়া হয়েছে যে, ‘ভেড়ার মাংস ভগবানের খাবার’। কিন্তু সেই বার্তা দিতে গিয়ে রীতিমত বিতর্কের মুখে পড়েছে ওই সংস্থা।

আরও পড়ুন: সম্প্রীতির নজির গড়ে হনুমান মন্দিরের জন্য জমি উপহার দিল মুসলিম পরিবার

অস্ট্রেলিয়া ও গোটা বিশ্বের হিন্দুরা এই বিজ্ঞাপন প্রচারের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ করেছে। তাঁরা দাবি করেছেন, এতে হিন্দু ধর্মকে অসম্মান করা হয়েছে। এতে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করা হয়েছে বলেও কমেন্ট করেছেন অনেকে। সংস্থার উদ্দেশে একজন লিখেছেন, ‘আপনারা হয়ত জানেন না, হিন্দু দেবতা ও মাংস একসঙ্গে থাকতে পারে না। ‘

Universal Society of Hinduism-এর প্রেসিডেন্ট রাজন জেড এই ঘটনায় ওই সংস্থাকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে বলে দাবি করেছেন। তিনি জানান, এতে গোটা বিশ্বের হিন্দুরা ব্যথিত হয়েছে। এক বিবৃতিতে তিনি লিখেছেন, ‘বাড়িতে এবং মন্দিরে গণেশের পুজো করা হয়। এইভাবে মাংস বিক্রির জন্য দেবতাকে ব্যবহার খুবই অসম্মানজনক। তাছাড়া মাংস খাওয়ার বিষয়টি দেখিয়ে আরও অসম্মান করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন: আলোকবর্ষ দূরের গ্রহ থেকে ভিনগ্রহীদের সাড়া পেলেন এই ভারতীয় বিজ্ঞানী

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.