নটিংহ্যাম: স্বপ্নের ইনিংস কুলটার-নাইলের! আট নম্বরে ব্যাটিং করতে নেমে বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ স্কোরের পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়া ইনিংসকে খাদের কিনার থেকে টেনে তুলে আনেন ৩১ বছরের অজি অল-রাউন্ডার৷ মাত্র ৮ রানের জন্য সেঞ্চুরি হাতছাড়া হলেও অস্ট্রেলিয়াকে লড়াইয়ের জায়গায় পৌঁছে দেন নাইল৷ প্রাক্তন অজি ক্যাপ্টেন স্টিভ স্মিথ ৭৩ ও নাইলের ৯২ রানে ভর করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে ২৮৯ রানের টার্গেট রাখে অস্ট্রেলিয়া৷

টস জিতে ফিল্ডিং নিয়ে ট্রেন্ট ব্রিজের বাউন্সি পিচে দ্রুত কয়েকটি উইকেট তুলে নেওয়ার বার্তা দিয়েছিলেন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক জেসন হোল্ডার। ম্যাচের শুরুতে সেটাই করে দেখান ক্যারিবিয়ান পেসাররা৷ তৃতীয় ওভারেই ক্যাপ্টেন অ্যারন ফিঞ্চকে ড্রেসিংরুমে ফিরিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে প্রথম ধাক্কা দেন ওসানে থমাস৷ মাত্র ৬ রান করে ড্রেসিংরুমে ফেরেন অজি অধিনায়ক৷

চতুর্থ ওভারে ফর্মে থাকা ওয়ার্নারকে তুলে নিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে বড় ধাক্কা দেন কটরেল৷ এদিন মাত্র ৩ রান করে আউট হন প্রথম ম্যাচ আফগানদের বিরুদ্ধে ৮৯ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলা বাঁ-হাতি অজি ওপেনার৷ ওয়ার্নারের উইকেট নিয়ে মিলিটারি প্যারাড ও স্যালুটে সেলিব্রেশন করেন কটরেল৷

বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ম্যাচেও ক্যারিবিয়ান পেস ব্যাটারির দাপট অব্যাহত৷ ট্রেন্ট ব্রিজে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে ক্যারিবিয়ান পেসারদের দাপটে মাত্র ১০৫ রানে অল-আউট হয়ে গিয়েছিল পাকিস্তান৷ ওয়েস্ট ইন্ডিজ পেসারদের বাউন্সারের সামনে অসহায় আত্মসমপর্ণ করেছিলেন পাক ব্যাটসম্যানরা৷ এদিনও অজি টপ-অর্ডারে থাবা বসান ক্যারিবিয়ান পেসাররা৷ মাত্র ৭৯ রানে পাঁচ উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া৷ ড্রেসিংরুমে ফিরে যান ফিঞ্চ, ওয়ার্নার, খোয়াজা, ম্যাক্সওয়েল ও স্টওনিস৷

কিন্তু এখান থেকেই দলকে ২৮৮ রানে পৌঁছে দেন কুলটার-লাইন ও স্মিথের অনবদ্য লড়াই৷ আফগানদের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচ রান না-পেলেও এদিন ক্যারিবিয়ান পেসারদের বিরুদ্ধে বুক চিতিয়ে লড়াই করে ৭৩ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন প্রাক্তন অজি অধিনায়ক৷ ১০৩ বলের ইনিংসে মাত্র ৭টি বাউন্ডারি মারেন স্মিথ৷ তাঁর সঙ্গে প্রথমে ক্যারি ও পরে কুলটার-নাইল বড় পার্টনারশিপ গড়ে বিপর্যয় কাটিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে বড় রানে পৌঁছে দেন৷ ষষ্ঠ উইকেটে স্মিথ ও ক্যারি ৬৮ এবং সপ্তম উইকেটে ১০২ রানের পার্টনারশিপ গড়েন স্মিথ ও কুলটার-নাইল৷

আট নম্বরে ব্যাট করতে নেমে বিশ্বকাপে সর্বাধিক রানের রেকর্ড গড়েন কুলটার নাইল৷ ক্রিজে এসেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করে ক্যারিবিয়ান পেসারদের ছন্দ নষ্ট করে দেন ৩১ বছরের অজি অল-রাউন্ডার৷ মাত্র ৮ রানের জন্য প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি হাতছাড়া হয় নাইলের৷ ৬০ বলের ইনিংসে ৮টি বাউন্ডারি ও ৪টি ছক্কা হাঁকান তিনি৷ উইকেটকিপার অ্যালেক্স ক্যারি ৫৫ বলে ৪৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেন৷ ৪৯ ওভারে ২৮৮ রানে শেষ হয়ে যায় অজি ইনিংস৷ ক্যারিবিয়ান বোলারদের মধ্যে ব্রাথওয়েট তিনটি এবং থমাস, কটরেল ও রাসেল দু’টি করে উইকেট নেন৷