স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: বন্দুক ঠেকিয়ে এক যুবককে অপহরণ করতে গিয়ে গ্রামবাসীদের ধাওয়া খেয়ে ধরা পড়ল তিন অপহরণকারী। বৃহস্পতিবার রাতে চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে রতুয়া থানার চাঁদমণি গ্রামে। এমনকি ক্ষিপ্ত গ্রামবাসীরা ওই তিন অপহরণকারীকে ব্যাপক গণপিটুনি দেয় বলে অভিযোগ। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় রতুয়া থানার পুলিশ। অভিযোগের ভিত্তিতে ওই তিন অপহরণকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত তিন দুষ্কৃতীর নাম মহম্মদ আরজাউল হক (৪৮), মহম্মদ ফারিদুল হক (৩৮) এবং মহম্মদ ইব্রাহিম (২৮)। এদের প্রত্যেকের বাড়ি কালিয়াচক থানা এলাকায়। ধৃতদের কাছ থেকে একটি পাইপগান ও দুই রাউন্ড কার্তুজ এবং চার চাকার একটি গাড়ি উদ্ধার করেছে পুলিশ। ধৃতদের শুক্রবার চাঁচল মহকুমা আদালতে পেশ করা হয়েছে। এদের মধ্যে অভিযুক্ত মোহাম্মদ ইব্রাহিমকে ১০ দিনের পুলিশ হেফাজতে চেয়ে চাঁচল আদালতে পেশ করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে ধৃতদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় অপরাধ মূলক একাধিক মামলা রয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, রতুয়া-১ ব্লকের চাঁদপুর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিকলপুর গ্রামের যুবক মনিরুল হক। পেশায় ব্যবসায়ী মনিরুল হক বৃহস্পতিবার রাতে বিকলপুর স্ট্যান্ড থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। তার বাড়ি চাঁদমণি গ্রামে। বাড়ি ফেরার পথে অন্ধকার রাস্তায় একটি চারচাকা গাড়িতে ওই দুষ্কৃতীরা তার পথ আটকায়। এবং তাকে বন্দুক ঠেকিয়ে জোর করে গাড়িতে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ।

সেই সময় ওই যুবক চিৎকার শুরু করে দেন। তাঁর চিৎকার শুনে স্থানীয় গ্রামবাসীরা ছুটে আসেন। সেই সময় দুষ্কৃতীরা গাড়ি নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। এরপরই গ্রামবাসীরা ধাওয়া করে ওই অপহরণকারীদের অস্ত্রসহ ধরে ফেলে। তাদের সঙ্গে থাকা আরও দুই দুষ্কৃতী রাতের অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় চাঁদমনি এলাকায়।

এরপর স্থানীয় গ্রামবাসীরাই খবর দেয় রতুয়া থানায়। পরে রতুয়া থানার পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছায় এবং অভিযুক্ত ওই তিন দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করে। পুলিশ তাদের কাছ থেকে একটি পাইপগান, দুটি কার্তুজ এবং একটি চার চাকার গাড়ি আটক করেছে। শুক্রবার অভিযুক্তদের চাঁচল মহকুমা আদালতে পেশ করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, আর্থিক কোনও লেনদেনের কারণেই হয়ত ওই ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল কালিয়াচকের দুষ্কৃতীরা। কিন্তু সময়মত গ্রামবাসীদের চেষ্টাতেই ধরা পড়ে যায় ওই তিন অপহরণকারী। যদিও এব্যাপারে পরিষ্কার করে অপহরণ হওয়া ওই যুবক পুলিশকে কিছু জানাতে চাননি।

চাঁচলের এসডিপিও সজল কান্তি বিশ্বাস জানিয়েছেন, পুরো ঘটনাটি নিয়ে তদন্ত শুরু করা হয়েছে । ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চাঁচল মহাকুমা আদালতের মাধ্যমে পুলিশি হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানিয়েছে রতুয়া থানার পুলিশ।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV