নয়াদিল্লি: দেশজুড়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আতঙ্ক। এরই মধ্যে বাড়ছে চিকিৎসকদের ওপর হামলাও। এবার ঘটনাস্থল হায়দরাবাদের গান্ধী হাসপাতাল। সেখানে কর্মরত চিকিৎসকদের অভিযোগ একাধিক অসুখে আক্রান্ত এক ব্যক্তি করোনার জেরে মারা জেতেই তাঁর পরিবারের লোকেরা হামলা চালায় চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর।

জানা গিয়েছে, করোনায় মৃত ব্যক্তির বয়স ছিল ৪৯। সপ্তাহখানেক আগে তাঁর দেহে ধরা পড়ে মারণ ভাইরাস করোনা। তাঁর মৃত্যুর পরেই চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তাঁদের ওপর হামলা করে মৃতের দুই আত্মীয়।

গান্ধী হাসপাতালের চিকিৎসকদের দাবি, এই হামলার ঘটনা খুব দ্রুত ঘটেছিল। চিকিৎসকেরা ইতিমধ্যেই নিরাপত্তার চেয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। পুলিশের কাছেও অভিযোগ জানিয়ে চিঠি লিখেছেন তাঁরা।

তবে শুধুমাত্র হায়দরবাদে এই ঘটনা সীমাবদ্ধ নেই। একই চিত্র দেখা যাচ্ছে, মধ্যপ্রদেশেও। সেখানে তাঁত পট্টি বখাল এলাকায় করোনা স্ক্রিনিং করতে গিয়ে এলাকার মানুষের হাতে আক্রান্ত হন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীরা। তাঁদের দিকে এলাকাবাসী ঢিল ছোঁড়ে বলে অভিযোগ। ইটের ঘায়ে আক্রান্ত হন দুই চিকিৎসক। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাঁদের উদ্ধার করে।

উল্লেখ্য, এই তাঁত পট্টি বখাল এলাকা থেকে দুইজন করোনা আক্রান্ত-র খোঁজ পাওয়া গিয়েছে। এছাড়াও ৫৪ টি পরিবারকে সম্পূর্ণ হোম আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে।

দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউনের দ্বিতীয় সপ্তাহ চলছে। পুলিশ চেষ্টা করছে মানুষ কোনও ভাবেই যাতে বাড়ির বাইরে বের না হয়, একই ভাবে চিকিৎসকদের নিরাপত্তা দিতেও সচেষ্ট হচ্ছে পুলিশ। আপাত ভাবে দেশের বেশিরভাগ জায়গায় পালন হচ্ছে লকডাউন। তবে কোথাও কোথাও রাস্তায় বেরোনের চেষ্টা করছে মানুষ।