ইসলামাবাদ: মন্দির ভেঙে পাকিস্তানের রাস্তায় তাণ্ডব। ভাইরাল হল সেই ভিডিও। সূত্রের খবর, স্কুলের প্রিন্সিপ্যাল হজরত মহম্মদকে নিয়ে অপমানজনক মন্তব্য করেছিলেন। আর তার জেরেই এই ঘটনার সূত্রপাত। ইন্ডিয়া টুডে-তে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশ নাকি রীতিমত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয়।

জানা গিয়েছে, রানা মহম্মদ ইবতিসাম নামে সিন্ধ পাবলিক স্কুলের এই ছাত্র প্রিন্সিপ্যালের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে। সে জানিয়েছে যে উর্দু ক্লাসেই ঘটনা ঘটে। শিক্ষককে থামিয়ে দিয়ে প্রিন্সিপ্যাল মহম্মদ সম্পর্কে বলতে শুরু করেন। তিনি নাকি উর্দু শিক্ষককে বলেন, ‘আপনি পড়াতে পারছেন না।’

এরপর প্রিন্সিপালের মুখে অপমানজনক কিছু শব্দ শোনা যায় বলেও অভিযোগ করেছে ওই ছাত্র। সে বাড়ি ফিরে বাবাকে সেকথা জানায়। তার বাবা প্রিন্সিপ্যালকে বললে তিনি বলেন, ‘ভুল হয়ে গিয়েছে।’

ওই ছাত্র প্রিন্সিপ্যালে মন্তব্যগুলো ফেসবুকে পোস্ট করে দেয়। আর তাতেই উত্তেজনা চরমে ওঠে। প্রিন্সিপ্যালের বিরুদ্ধে ব্ল্যাশফেমির অভিযোগ ওঠে।

এরপরই মন্দির ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে বলে জানা গিয়েছে। অন্তত ৫০ জন বিক্ষোভকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে বলে জানা গিয়েছে। ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। এলাকা থমথমে রয়েছে।

স্কুলের ওই প্রিন্সিপ্যালকে একটি নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে তিনটি মন্দির ভেঙে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া একটি বেসরকারি স্কুল ও একাধিক বাড়িও ভাঙচুর হয়েছে বলে খবর।