স্টাফ রিপোর্টার, হলদিয়া: কংগ্রেস প্রার্থী লক্ষ্মণ শেঠের গাড়িতে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। শুক্রবার ঘটনাটি ঘটে হলদিয়ার সুতাহাটা ব্লকের চৈতন্যপুর এলাকায়।

বাম থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর থেকে রাজনৈতিক অস্তিত্ব ধরে রাখার জন্য একের পর এক ধাক্কা সহ্য করতে হয় প্রাক্তন বাম সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠকে। নিজের দল ভারত নির্মাণ পার্টি বিশেষ সফলতা পায়নি। পরে বিজেপি শিবিরে নাম লেখান তিনি।

বিজেপির পর তৃণমূলে ঠাঁই না পেয়ে শেষমেশ কংগ্রেসের ঘরে ঢোকার চেষ্টা চালায়। অনেক জল ঘোলা করার পর শেষমেশ দলে যোগদানের সুযোগ পেয়েছিলেন লক্ষ্মণবাবু। সেই সঙ্গে তমলুক লোকসভার কংগ্রেসের টিকিটে প্রার্থী হন প্রাক্তন বাম সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ।

দলে যোগদান আর টিকিট পাওয়ার পর থেকে দলের অন্দরমহলের কলহ শুরু হয়। প্রার্থী হয়েছেন, প্রচারে না নামলে হয়। তাই পূর্ব ঘোষণা অনুসারে শুক্রবার হলদিয়ার সুতাহাটা ব্লকের চৈতন্যপুরে রাজনৈতিক মিছিলের আয়োজন করা হয়। দলিয় কর্মী সমর্থকেরা মিছিল শুরু করলেও অনেক দেরিতে আসেন প্রার্থী লক্ষ্মণ শেঠ।

গাড়ি থেকে চৈতন্যপুরে মিছিল যোগদান করতে যাওয়ার সময় কয়েকজন তার গাড়িতে হামলা শুরু করে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। পুলিশের সামনেই চলে ধস্তাধস্তি। পরিস্থিতি পুলিশের নাগালের বাহিরে চলে যায়। পরে বিশাল পুলিশবাহিনীর উপস্থিতিতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

কংগ্রেস প্রার্থী লক্ষ্মণ শেঠের অভিযোগ, আমরা প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে প্রচারের কাজ শুরু করেছিলাম। হঠাৎ স্থানীয় তৃণমূল নেতা পার্থ বটব্যালের নেতৃত্ব তৃণমূলের কয়েকজন দুষ্কৃতি আমার উপর হামলা চালায়। আমার গাড়ি ভাঙচুর চালায়, আমাকে মারধর করতে থাকে। আমরা নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানাচ্ছি। পুলিশের উপস্থিতিতে কেন এমন অশান্তি সৃষ্টি করা হল।

সদ্য কংগ্রেস থেকে তৃণমূলে যোগদানকারী পার্থ বটব্যাল জানান, নন্দীগ্রামের পর আবার হলদিয়ার সুতাহাটা ব্লকে অশান্তি সৃষ্টি করার চেষ্টা চালাচ্ছে। মানুষ খুনি লক্ষ্মণ শেঠকে মেনে নিতে পারেনি। তাই তারা এলাকায় প্রচার করতে দেয়নি।