প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: মনোনয়নপর্বে বিরোধীরা বারবার অভিযোগ তুলেছে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করাতে বাধ্য করছে তৃণমূল৷ ভয় দেখানো, মারধর, এমনকী প্রাণে মারার হুমকিও পর্যন্ত দিচ্ছে তারা৷ এবার সেই একই অভিযোগ তৃণমূলের অন্দরেই৷

গোঁজ প্রার্থী হিসাবে যেসব তৃণমূল কর্মীরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তাঁদের তা প্রত্যাহারের জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ৷ অভিযোগ, সেই কারণেই নাকি এবার বাড়ি বাড়ি গিয়ে হামলা চালানো হচ্ছে৷

আরও পড়ুন: এটিএম থেকে লক্ষাধিক টাকা গায়েব করে গ্রেফতার যুবক

শনিবারই ভাতারে গোষ্ঠীসংঘর্ষের জেরে প্রাণ যায় রমজান মোল্লা নামে এক তৃণমূল সমর্থকের৷ যদিও তৃণমূল নেতৃত্ব এই ঘটনার সঙ্গে গোষ্ঠীকোন্দলের কোনও যোগ নেই বলে দাবি করেন৷ অন্যদিকে গলসির এক প্রার্থী সুকুমার রুইদাসের বাড়িতেও হামলা চালানো হয় রবিবার রাতে৷ অভিযোগ একই! দলের কথা না শুনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া৷

গলসির লোয়া রামগোপালপুর গ্রামপঞ্চায়েত৷ সেখানকার শিল্যা গ্রামে গতবার তৃণমূলের প্রতীকে ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন সুকুমার রুইদাস৷ জয়ীও হন৷ কিন্তু এবার দল তাঁকে টিকিট দেয়নি৷ বদলে টিকিট পেয়েছেন কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়া স্বপন বাগদী৷

আরও পড়ুন: ১০০ দিনের কাজে এক নম্বরে পশ্চিমবঙ্গ, মাথায় হাত বিজেপির

যে স্বপন বাগদীকে গত পঞ্চায়েত ভোটে হারিয়েই তৃণমূলের ‘মুখ উজ্জ্বল’ করেছিলেন সুকুমারবাবু৷ কার্যত সেই ‘অভিমানেই’ এবার আলাদা করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন সুকুমার রুইদাস৷

অভিযোগ, এরপরই তাঁকে প্রার্থীপদ প্রত্যাহারের জন্য চাপ দেওয়া হতে থাকে৷ কিন্তু প্রার্থীপদ প্রত্যাহার করেননি। এই কারণেই রবিবার রাতে তৃণমূলের বাইকবাহিনী তাঁর বাড়িতে হামলা করে। বোমাবাজির পাশাপাশি বাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুরও করা হয়েছে বলে অভিযোগ সুকুমার রুইদাসের৷

রবিবারই গলসির নবখণ্ড গ্রামের নির্দল প্রার্থীর বাড়িতেও তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ৷ এখানে তৃণমূলের প্রার্থী মন্দিরা ঘোষ৷ গত শুক্রবার গলসিতেই তৃণমূলের বিক্ষুব্ধ নির্দল প্রার্থীর বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠেছিল।

আরও পড়ুন: অর্থনীতির ফের পরীক্ষা ফলাফল প্রকাশে কোনও প্রভাব ফেলবে না

পারাজের ১৩ নম্বর সংসদে তৃণমূলের বিক্ষুব্ধ নির্দল প্রার্থী জয়ারানি দাস৷ অভিযোগ, প্রার্থীপদ প্রত্যাহার না করায় গত ২৭ এপ্রিল রাতে হামলা চালায় দুষ্কৃতী বাহিনী। তাঁর স্বামীকে বেধড়ক মারধর করা হয়৷ জয়ারানি দাসের অভিযোগ, তৃণমূলের গলসি-১ ব্লক সভাপতির অনুগামীরাই এই হামলা চালিয়েছে।

গলসি-১ ব্লকের সংখ্যালঘু সেলের চেয়ারম্যান জাহির আব্বাস মণ্ডল জানিয়েছেন, সুকুমার রুইদাসের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ থাকায় দল এবার তাঁকে প্রার্থী করেনি। হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি জানিয়েছেন, তৃণমূলের কেউ কোনওরকম হামলা, হানাহানির সঙ্গে যুক্ত থাকে না৷ একই বক্তব্য ব্লক সভাপতি জাকির হোসেনেরও৷

আরও পড়ুন: স্ত্রীকে খুন করে যাবজ্জীবন হাজতবাস শিক্ষকের

গলসির মতোই জেলার বিভিন্ন জায়গা থেকে এই অভিযোগ আসছে৷ মন্তেশ্বরের কুসুমগ্রামে রবিবার রাতে বাকু শেখ নামে এক তৃণমূল নেতার বাড়িতেও দুষ্কৃতীরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ৷ বাড়ির সদস্যদের মারধর করার পাশাপাশি বাড়িতে ভাঙচুর করারও অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলেরই অপর গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে৷

কুসুমগ্রাম গ্রামপঞ্চায়েতের সদস্য কিসমতারা বিবির বাড়িতেও হামলার ঘটনা ঘটে। নাম জড়িয়েছে তৃণমূলেরই৷ যদিও এ ব্যাপারে তৃণমূলের লোকজন মুখ খুলতে নারাজ৷

আরও পড়ুন: গুগল হল ‘নারদ মুনি’, মন্তব্য বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী