বালুরঘাট: জুয়া খেলার পাওনা টাকা আদায়ে এলাকায় বহিরাগত দুষ্কৃতীদের হামলা। বাড়িতে ঢুকে স্থানীয় এক যুবককে পাওনা টাকা চেয়ে মারধর ও আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে ছিনতাইয়ের নেওয়ার অভিযোগ। চিৎকার শুনে উত্তেজিত বাসিন্দারা দুষ্কৃতীদের ধাওয়া করলে আগ্নেয়াস্ত্র সমেত একজনকে ধরে ফেলেন। দুষ্কৃতীদের বাকিরা পালিয়ে যায়। আটক দুষ্কৃতীকে লাইটপোস্টে বেঁধে মারধর করেন উত্তেজিত মানুষজন।

বালুরঘাট শহরের খিদিরপুর এলাকার এই ঘটনায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। খবর পেয়ে বালুরঘাট থানার টাউনবাবু সঞ্জয় মুখার্জির নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আটক দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করেছে। বৃত্তের কাছ থেকে একটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার রাত্রি আটটা নাগাদ খিদিরপুর প্রাইমারি স্কুল লাগোয়া এলাকায় একদল দুষ্কৃতী গিয়ে চড়াও হয়। দুষ্কৃতীরা স্থানীয় সুটন সাহা নামের এক যুবককে মারধর করে ও তার কপালে আগ্নেয়াস্ত্র ঠেকিয়ে সাত হাজার টাকা আদায় করে। যুবকের চিৎকার শুনে আশপাশের এলাকার মানুষজন ছুটে আসেন।

তারা দুষ্কৃতীদের সামনা করে রুখে দাঁড়ান। আগ্নেয়াস্ত্র সমেত একজনকে ধরে ফেলেন ও বাকিরা পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা আটক দুষ্কৃতীকে লাইট পোস্টের সাথে পিঠমোড়া করে বেঁধে রাখেন ও পুলিশকে খবর দেন। স্থানীয় বাসিন্দা সুপর্ণা সাহা অভিযোগ করে বলেন এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরেই জুয়াড়িদের আনাগোনা বেড়ে চলেছে।

বহিরাগত জুয়াড়িদের পাল্লায় পড়ে স্থানীয় যুবকরা প্রভাবিত হচ্ছে। জুয়ায় হেরে যাওয়া যুবকের কাছে পাওনা টাকা আদায়ের জন্য শনিবার সকাল থেকেই দুষ্কৃতীরা এলাকায় এসে পাওনা টাকা আদায়ের চেষ্টা নানাভাবে ভয় দেখিয়ে বেড়াচ্ছিল। রাত্রি আটটা নাগাদ ফের তারা আগ্নেয়াস্ত্র সমেত এসে এলাকার এক বাড়িতে ঢুকে হামলা চালালে প্রতিবেশীরা সবাই মিলে তাদের ধাওয়া করে। দুষ্কৃতীদের অন্যরা পালিয়ে গেলেও আগ্নেয়াস্ত্র সমেত একজনকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প