মারগাঁও: রবিবার ফতেদরা স্টেডিয়ামে আইএসএল-এর গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে এফসি গোয়ার বিরুদ্ধে ড্র করল সবুজ-মেরুন৷ এডু গার্সিয়ার বিশ্বমানের গোলে এগিয়ে গিয়েও ব্যবধান ধরে রাখতে পারল না এটিকে মোহনবাগান৷ ১০ মিনেটের মধ্যেই সুপার-সাব ইশান পন্ডিতার গোলে সমতায় ফেরে এফসি গোয়া৷ শেষ পর্যন্ত ১-১ গোলে ম্যাচ শেষ হয়৷ এই ম্যাচের পর ১১ ম্যাচে ২১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রইল এটিকে মোহনবাগান৷ এক ম্যাচ বেশি খেলে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে এফসি গোয়া৷ আর ১১ ম্যাচে ২৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে মুম্বই সিটি৷

আগের ম্যাচে মুম্বই সিটি-র বিরুদ্ধে হারের পর এফসি গোয়ার বিরুদ্ধে জিততে মরিয়া ছিল লোপেজ হাবাসের দল৷ চোট সারিয়ে এদিন ফেরেন কার্ল ম্যাকহিউ৷ পাশাপাশি দলে আরও দুটি পরিবর্তন করেন এটিকে মোহনবাগান কোচ৷ মাঝমাঠে শেখ সাহিল এবং প্রবীর দাস ফেরেন৷ এডু গার্সিয়া, রয় কৃষ্ণ এবং ডেভিড উইলিয়ামসকে রেখে পুরোপুরি আক্রমণাত্মক লাইন-আপ সাজান হাবাস৷

শুরু থেকেই আক্রমণে যায় এটিকে মোহনবাগান খেলোয়াড়রা৷ ছোট ছোট পাস খেলে আক্রমণে ওঠার চেষ্টা করছে গোয়াও৷ পাশাপাশি দূর থেকে শট নেওয়ার চেষ্টাও করে তারা৷ নগুয়েরা বারবার বক্সে ঢুকে পড়ে এটিকে বক্সে চাপ বাড়ান৷ বাগানও সুযোগ পেয়েছিল৷ গার্সিয়ার কর্নার থেকে শুভাশিস বসুর হেড বারে লাগে৷

দুই দলই একের পর কাউন্টার অ্যাটাক তুলে আনছে৷ প্রথমার্ধে কোনও দলই গোল করতে পারেনি৷ তবে বল পায়ে বেশি রাখে গোয়া৷ হাফ-টাইমের ঠিক আগেই গার্সিয়ার ফ্রি-কিক থেকে ডেভিড উইলিয়ামসের হেড বাইরে চলে যায়৷ ৬০ মিনিটে হলুদ কার্ড দেখেন গঞ্জালেজ৷কৃষ্ণকে অবৈধ ফাউল করেন তিনি৷ ম্যাকহিউ এসে ধাক্কা মেরে ফেলে দেন তাঁকে৷ প্লেয়ারদের মধ্যে তর্কাতর্কি৷ গঞ্জালেজ হলুদ কার্ড দেখান রেফারি৷

ম্যাচের ৭৪ মিনিটে গার্সিয়ার গোলে এগিয়ে যায় এটিকে মোহনবাগান৷ বক্সের বাইরে ফ্রি-কিক পেয়েছিল এটিকে৷ সামনের ওয়াল দাঁড় করালেও গোলার মতো শট এফসি গোয়ার গোলরক্ষককে নড়তে না-দিয়ে বল জালে জড়িয়ে দেন গার্সিয়া৷ কিন্তু এই ব্যবধান বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি হাবাসের দল৷ ১০ মিনিটের মধ্যেই দলকে সমতায় ফেরান সুপার-সাব হিসেবে মাঠে নামা গোয়ার ইশান৷ কর্নার থেকে ডোনাচির হেড সেভ করেন অরিন্দম৷ কিন্ত পালটা বল জালে ঠেলে গোল করেন পন্ডিতা৷ বাকি সময়ে কোনও দল গোল করতে পারেনি৷ ফলে ম্যাচ ড্র হয়৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।