পানাজি: গত রাতেই নিউজিল্যান্ড থেকে পৌঁছে গিয়েছিলেন নয়াদিল্লিতে। সেখান থেকে শনিবার দুপুরে গোয়ায় পৌঁছে গেলেন এটিকে-মোহনবাগান স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণা। এদিন গোয়ার টিম হোটেলে জৈব সুরক্ষা বলয়ে প্রবেশ করলেন ফিজির এই স্ট্রাইকার। রয় কৃষ্ণার সঙ্গে একইসঙ্গে আজ মোহনবাগান শিবিরে যোগ দিলেন এটিকে-মোহনবাগানের নয়া বিদেশি ব্র্যাড ইনমান।

ষষ্ঠ এবং সপ্তম বিদেশি হিসেবে দলের সঙ্গে যোগ দিলেন তারা। এর আগে আরেক স্ট্রাইকার ডেভিড উইলিয়ামস, ডিভেন্ডার তিরি, মিডফিল্ডার এডু গার্সিয়া সহ গোয়ায় পৌঁছে গিয়েছিলেন এটিকে-মোহনবাগানের ৫ বিদেশি ফুটবলার। যার মধ্যে কোচ অ্যান্তোনিও লোপেজ হাবাস সহ স্প্যানিশ সহকারীদের সঙ্গেই গোয়ার মাটিতে পৌঁছে গিয়েছিলেন স্প্যানিশ ফুটবলাররাও। তবে ষষ্ঠ এবং সপ্তম বিদেশি হিসেবে কৃষ্ণা, ইনমান পৌঁছে গেলেও আরও এক বিদেশি ফুটবলার আসা বাকি সবুজ-মেরুন শিবিরে।

ডিফেন্ডার জন জনসন দিনকয়েক বাদেই যোগ দেবেন শিবিরে। সাত নয় বরং এবার স্কোয়াডে আট বিদেশিকে রেখেছে এটিকে-মোহনবাগান ম্যানেজমেন্ট। তবে রেজিষ্ট্রেশন হবে সাত বিদেশিরই। কোয়ারেন্টাইন পর্ব কাটিয়ে এটিকে-মোহনবাগানের স্বদেশী ব্রিগেড অনুশীলনে নামে পড়েছে আগেই। নিজেদের মধ্যে বন্ডিং বিল্ড-আপের জন্য ভিন্ন পদ্ধতিতে নানা অনুশীলনে মজে রয়েছেন প্রীতম, প্রণয়, প্রবীর, ধীরজরা। ওদিকে কোচ অ্যান্তোনিও লোপেজ হাবাস সহ দলের স্প্যানিশ ব্রিগেডের কোয়ারেন্টাইন শেষ হচ্ছে রবিবার।

অর্থাৎ, আগামী সোমবার থেকে দলকে অনুশীলন করাতে নেমে পড়বেন এটিকে-মোহনবাগানের স্প্যানিশ কোচ। রয় কৃষ্ণা, ব্র্যাড ইনমানকে অনুশীলনে নামার আগে ১৪ দিন কাটাতে হবে কোয়ারেন্টাইনে। উল্লেখ্য, প্রথম ফ্র্যাঞ্চাইজি দল হিসেবে আইএসএল খেলতে গোয়ার মাটিতে পা রেখেছিলেন মোহনবাগান ফুটবলাররাই। গত ২৬ সেপ্টেম্বর সবুজ-মেরুনের দেশীয় ব্রিগেড পৌঁছে গিয়েছিল সেখানে। এরপর গত ৪ অক্টোবর শিবিরে যোগ দিয়েছিলেন কোচ হাবাস সহ সাপোর্ট স্টাফেরা।

উল্লেখ্য, দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকায় ফিজি থেকে রয় কৃষ্ণা নিউজিল্যান্ডে পৌঁছে গিয়েছিলেন গত মাসেই। সেখানে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে কাটাতে হয় তাঁকে। এরপর ভিসা এবং বিমানের টিকিটের জন্য দিনকয়েকের অপেক্ষা করতে হয় গত মরশুমে আইএসএলের সর্বোচ্চ গোলস্কোরারকে। ডেভিড উইলিয়ামসের পাশে ১৫টি গোল করে এটিকে’র খেতাব জয়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নিয়েছিলেন কৃষ্ণা।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।