পানাজি: প্রত্যাবর্তনে বাজিমাত করে গেলেন অ্যান্তোনিও লোপেজ হাবাস। টানা দু’টি মরশুম নিষ্প্রভ থাকার পর স্প্যানিশ কোচের হাত ধরে তৃতীয়বার আইএসএল চ্যাম্পিয়ন হল এটিকে। গোয়ায় এদিন দর্শকহীন ছিল স্টেডিয়ামের গ্যালারি। কিন্তু তা কোনওভাবেই প্রভাব ফেলেনি এটিকে’র খেলায়। জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে মেগা ফাইনালে চেন্নাইয়িনকে ৩-১ গোলে হারাল হাবাসের ছেলেরা। জোড়া গোল করে ম্যাচের নায়ক জাভি হার্নান্ডেজ।

সংযুক্তিকরণ সম্পন্ন হয়েছে ইতিমধ্যেই। আগামি মরশুমে মোহনবাগানের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে আইএসএল খেলবে এটিকে। তার আগে ২০১৯-২০ মরশুমে মোহনবাগানের আই লিগ জয়ের পর এটিকের আইএসএল খেতাব জয় যথেষ্ট উল্লেখযোগ্য। একইসঙ্গে ফ্র্যাঞ্চাইজি ফুটবল লিগে প্রথম ক্লাব হিসেবে তিনবার ট্রফি ঘরে তুলল কলকাতার ফ্র্যাঞ্চাইজি দলটি। হাবাসের পর ২০১৬ এটিকে’র দ্বিতীয় খেতাব এসেছিল আরেক স্প্যানিশ কোচ জোসে মোলিনার হাত ধরে। এরপর গত দু’মরশুমে স্প্যানিশ ঘরানা বদলে মুখ থুবড়ে পড়েছিল এটিকে।

তাই চলতি মরশুমে ফের খেতাব জয়ের লক্ষ্যে স্প্যানিশ ঘরানাতে ফিরে যায় সঞ্জীব গোয়েঙ্কা অ্যান্ড কোম্পানি। কোচ হিসেবে ফিরিয়ে আনা হয় হাবাসকে। মরশুম শেষে ফ্র্যাঞ্চাইজিকে তাঁর প্রতি আস্থা রাখার মর্যাদা দিলেন স্প্যানিয়ার্ড। প্রথমবার দু’বার কেরালা ব্লাস্টার্সকে হারিয়ে খেতাব জিতলেও তৃতীয়বার আইএসএল ফাইনালে এটিকে ঝড়ে উড়ে গেল ওয়েন কোয়েলের চেন্নাইয়িন। উত্তেজক ফাইনালের প্রথমার্ধে এদিন গোল তুলে নিতে বিশেষ সময় নেয়নি এটিকে।

রয় কৃষ্ণার বামপ্রান্তিক ক্রস থেকে দর্শনীয় ড্রপ শটে বিশাল কাইথকে পরাস্ত করেন স্প্যানিয়ার্ড জাভি হার্নান্ডেজ। প্রথমার্ধের শেষদিকে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন কৃষ্ণা। কিন্তু তাতে আটকায়নি এটিকের খেলার গতি। প্রথমার্ধে ১ গোলে আগুয়ান এটিকে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ব্যবধান বাড়িয়ে নেয়। ডেভিড উইলিয়ামসের পাস থেকে এটিকে’র হয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন এডু গার্সিয়া। যদিও ৬৯ মিনিটে ভালসকিজের গোলে ম্যাচে কিছুটা ফেরে চেন্নাই।

কিন্তু এটিকের জমাট ডিফেন্স ভেদ করে সমতাসূচক গোল তুলে নিতে পারেনি ব্লু জার্সিধারীরা। উলটে সংযুক্তি সময় ফাইনালে নিজের দ্বিতীয় গোল করে এটিকে’র জয় নিশ্চিত করেন জাভি। প্রণয় হালদারের ডিফেন্স চেরা থ্রু ধরে বিপক্ষের কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেন তিনি।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।