ফাইল ছবি

কলকাতা: করোনার ভ্যাকসিন হাতে এলেই প্রথমেই কো-মবির্ডিটির রোগীদের সেই ভ্যাকসিন বিনামূল্যে দেওয়া হবে। এমনই জানিয়েছে কলকাতা পুরসভা। করোনায় কাবু হয়ে বেশি কো-মবির্ডিটির রোগীদেরই মৃত্যু হচ্ছে। এমনকী অন্যদের তুলনায় অধিকাংশ ক্ষেত্রে তাঁরাই করোনায় বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন।

সেই কারণেই ভ্যাকসিন হাতে এলে সবার আগে শহরের কো-মবির্ডিটির রোগীদের তা দেওয়া হবে বলে কলকাতা পুরসভার তরফে জানানো হয়েছে।

গোটা বিশ্ব করোনার গ্রাসে। সংক্রমণ বিপজ্জনক চেহারা নিয়েছে এদেশেও। দেশের অন্য একাধিক রাজ্যের পাশাপাশি বাংলাতেও করোনার সংক্রমণ উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। প্রতিদিন হাজার-হাজার মানুষ নতুন করে সংক্রমিত হচ্ছেন। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যু।

রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২ লক্ষ ১৮ হাজার ৭৭২। রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪ হাজার ২৪২। রাজ্যে এখনও পর্যন্ত করোনামুক্ত হয়েছেন মোট ১ লক্ষ ৯০ হাজার ২১ জন।

বিশ্বের একাধিক দেশ করোনার ভ্যাকসিন বানাচ্ছে। পিছিয়ে নেই ভারতও। দেশে পুণের সেরাম ইন্সটিটিউট বানাচ্ছে করোনার ভ্যাকসিন। এছাড়াও দেশের আরও কয়েকটি সংস্থা করোনার ভ্যাকসিন তৈরিতে দিন-রাত এক করে কাজ করে চলেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন বছরের শুরুতে বা চলতি বছরের শেষেই বাজারে করোনার ভ্যাকসিন চলে আসবে। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জনিয়ে দিয়েছেন, করোনার ভ্যাকসিন এলে তা এরাজ্যে প্রত্যেককে বিনামূল্যে দেওয়া হবে।

কলকাতা পুরনিগম জানিয়েছে, ভ্যাকসিন এলে অগ্রাধিকার পাবেন কো-মর্বিডিটি রোগীরা। শিশুদেরও অগ্রাধিকারের ভিত্তিতেই ওই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। দেশজুড়ে কো-মর্বিডিটি রোগীদের মধ্যেই করোনার সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি।

করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃতদের তালিকাতেও শীর্ষে কো-মর্বিডিটি রোগীরাই। সেই কারণেই এবার সুগার, প্রেসার, কিডনি, ফুসফুস, সহ নানা রোগে যাঁরা ভুগছেন, তাঁদের তালিকা তৈরির কাজ শুরু করে দেওয়া হয়েছে। করোনার ভ্যাকসিন হাতে এলেই বিনামূল্যে প্রথমেই কো-মর্বিডিটি রোগীদের দেওয়া হবে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।