কলকাতা: বিয়ে বাড়ি থেকে ফেরার পথে খাস কলকাতায় দুষ্কৃতীদের দাপটে প্রাণ হারালেন এক প্রৌঢ়। মঙ্গলবার গভীর রাতে ঘটনাটি ঘটেছে ট্যাংরার পূর্বাচল গোবিন্দ ফটিক রোডের একটি নির্জন রাস্তায়। রাতে পুত্রবধূকে দুষ্কৃতীদের হাত থেকে বাঁচাতে যায় ওই প্রৌঢ়। তখনই বাধা পেয়ে প্রৌঢ়ের গায়ের উপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে পালাল দুষ্কৃতীরা।

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রাত ১২টা নাগাদ শ্বশুর, শাশুড়ি এবং ননদের সঙ্গে বিয়েবাড়ি থেকে ফিরছিলেন বছর ২৮-এর ওই গৃহবধূ। বেশি রাত হওয়ায় সেই সময় ফাঁকাই ছিল রাস্তা। ফলে নির্জন ওই রাস্তায় আচমকা তাঁদের সামনে একটি অ্যাম্বুলেন্স এসে দাঁড়ায়। এবং পথ আটকায় পরিবারের সদস্যদের। গাড়ি থেকে নেমে ওই গৃহবধূকে জোর করে নিজেদের গাড়িতে তোলার চেষ্টা করে দুষ্কৃতীরা। ঘটনার আকস্মিকতায় কিছুক্ষণের জন্য স্তব্ধ হয়ে পড়লেও, তৎক্ষণাৎ বাধা দেন শ্বশুর গোপাল প্রামাণিক।

তুলনায় কমবয়সি একাধিক দুষ্কৃতীর সঙ্গে এঁটে উঠতে পারেননি তিনি। দুষ্কৃতী ও গোপালবাবুর সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ ধস্তাধস্তি চলে। এদিকে ঘটনা বেগতিক বুঝে গৃহবধূকে ছেড়ে গোপালবাবুকে ধাক্কা দেয় এক দুষ্কৃতী। তখন তিনি অ্যাম্বুলেন্সের সামনে গিয়ে পড়েন। এরপর দ্রুত গাড়িতে ওঠে দুষ্কৃতীরা গোপালবাবুর গায়ের উপর দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স চালিয়ে দেয়। পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত্যু হয় শ্বশুরের।

এদিকে এই ঘটনায় ট‍্যাংরা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই গৃহবধূ। জানা গিয়েছে, অ্যাম্বুলেন্সটি ৫০ বছরের গোপাল প্রামাণিককে চাপা দেওয়ার পর বৈশালি মোড়ের দিকে চলে যায়। ভয়ঙ্কর এই ঘটনায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে ট‍্যাংরা এলাকায়। ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকার মানুষ। অভিযুক্তদের দ্রুত শাস্তির দাবি জানিয়েছেন গৃহবধূ ও তাঁর পরিবার। যদিও ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছে ওই গাড়ির চালক এবং দুষ্কৃতীরা। অভিযুক্তদের খোঁজ পেতে ওই এলাকার সিসিটিভির ফুটেজ খতিয়ে দেখে তল্লাশিতে শুরু করেছে।