স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: চলার পথে নানারকম ঘটনার সাক্ষী থাকে মানুষ। কোনও ঘটনা ক্ষনিকের। আবার কোনও ঘটনা দাগ কেটে যায় মনে। মঙ্গলবার সকালে এমনই এক অভিনব ঘটনার সাক্ষী থাকল ডাউন নৈহাটি লোকাল।

চলন্ত ট্রেনে হচ্ছে আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান। দেখে মনে হতে পারে, কোনও বিয়ে বাড়িতে আয়োজিত আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান চলছে। একদম ঠিক ধরেছেন। এটা আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান চলছে। কিন্তু, সেটা কোনও বিয়ে বাড়িতে নয়, এটা মঙ্গলবার সকালের চলন্ত ডাউন নৈহাটি লোকালের সাধারন কামরার ঘটনা। ওই কামড়ার নিত্যযাত্রীরা সকলে মিলে এদিন তাঁদের দুই সহ যাত্রীকে ঘটা করে পঞ্চব্যাঞ্জনে আইবুড়ো ভাত খাওয়ালেন। আর এই ঘটনার সাক্ষী থাকল কয়েক হাজার নিত্যযাত্রী।

মঙ্গলবার সকাল ৯.২৭’র ডাউন নৈহাটি লোকালে হঠাৎ করেই শুরু হল হইহুল্লোড়। নিত্যযাত্রীরা অবাক হয়ে দেখেন, ওই কামড়ার দুই নিত্যযাত্রী সুমন বিশ্বাস ও শুভজিৎ ঘোষকে সমস্ত নিয়ম মেনে দেওয়া হচ্ছে আইবুড়ো ভাত। শুভজিৎ ঘোষ ও সুমন বিশ্বাস এই দুই নিত্য যাত্রীর বাড়ি নৈহাটি এলাকায়। শুভজিৎ ঘোষের বিয়ে আগামী ৩১ জানুয়ারি। এবং সুমন বিশ্বাসের বিয়ে আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি। তাই বিয়ের আগে ভাত,ডাল,মাছ,মাংস,সবজি ও মিষ্টি সহযোগে দুই সহযাত্রীকে আইবুড়ো ভাত খাওয়ালেন অন্যান্য নিত্যযাত্রীরা।

ঠিক বিয়ে বাড়িতে যেমন, পাত্র বা পাত্রীকে আইবুড়ো ভাত খাওয়ানোর চল রয়েছে। ঠিক তেমন করেই, এদিন সকাল ৯.২৭র ডাউন নৈহাটি লোকালে সাধারণ কামড়ার নিত্যযাত্রীরাও উলু দিয়ে, চন্দন পরিয়ে পঞ্চব্যাঞ্জনে সাজিয়ে আনন্দের সঙ্গে দিলেন দুই সহযাত্রী বন্ধুদের আইবুড়ো ভাত। চলন্ত ট্রেনে বিশ্বকর্মা পুজো বা ২৫ শে বৈশাখ পালন করতে তো আমরা আগেও দেখেছি। কিন্তু চলন্ত ট্রেনের কামরায় আইবুড়ো ভাত খাওয়ানোর অনুষ্ঠান একদমই এক অভিনব প্রচেষ্টা। তা মানছেন খোদ নিত্যযাত্রীরাও।

এই অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা এক নিত্যযাত্রী অর্ক দাস চট্টোপাধ্যায় বলেন, “আমরা এই কামরার নিত্য যাত্রীরা অনেকদিন ধরেই ভাবছিলাম নতুন কিছু করতে হবে। শুভজিৎ ও সুমনের সামনেই বিয়ে তাই অভিনব কিছু করবার সুযোগ পেয়ে গেলাম আমরা। তাই আমরা নিত্য যাত্রীরা সকলে মিলে পরিকল্পনা করে আজ চলন্ত ট্রেনের কামড়াতেই ভাত, ডাল, পাবদা মাছ, মাংস-সহ পাঁচ রকম ভাজা, সব্জি, পাঁচ রকম মিষ্টি দিয়ে আমাদের দুই সহ যাত্রী বন্ধুর আইবুড়ো ভাত দিয়ে দিলাম। আমাদের তরফ থেকে আমরা নিত্য যাত্রীরা যতটা সম্ভব ততটা ওদের আইবুড়ো ভাতের অনুষ্ঠান সম্পন্ন করার চেষ্টা করেছি।”

এদিকে সহযাত্রীদের এই প্রচেষ্টার মঙ্গলবার সকালটা বেশ আনন্দ করে হইহই করে কাটালেন ডাউন নৈহাটি লোকালে নিত্য যাত্রীরা।