স্টাফ রিপোর্টার, পটাশপুর: শুভেন্দু অধিকারীর বিজেপিতে যাওয়ার পর নন্দীগ্রামে গিয়ে সভা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এবার কাঁথিতে শুভেন্দু অধিকারীর বাড়ি থেকে ঢিল ছোড়া দূরত্বে সভা করছেন তৃণমূলের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আর এরই মধ্যে তৃণমূলী দুষ্কৃতীদের হাতে আক্রান্ত পরিবারের পাশে এসে দাঁড়ালো বিজেপির কার্যকর্তা।

প্রসঙ্গত, গত ২২ জানুয়ারি পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পটাশপুর ১ নম্বর ব্লকের গোকুল পুর গ্রাম পঞ্চায়েতের তুলসী চারা গ্রামে রাতের অন্ধকারে তৃণমূলের বহিরাগত দুষ্কৃতীরা চল্লিশটা বাড়ি ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ ওঠে। পাশাপাশি লুটপাট ও বোমাবাজিও চালায়। এইসব অসহায় পরিবারের পাশে এসে দাঁড়ালো বিজেপির কার্যকর্তা।

বিজেপির পক্ষ্য থেকে আজ তুলসীচারা গ্রামে প্রায় ৫০ টি পরিবারের হাতে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ নামে পরিচিত কনিষ্ক পন্ডা এসমস্ত পরিবারগুলির হাতে ত্রিপল, খাদ্য সামগ্রী, শাড়ি ও কম্বল তুলে দেন। এখানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপিত নেতা কনিষ্ক পন্ডা, বিদেশ পাত্র সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দরা।

বিজেপি নেতা বিদেশ পাত্র জানায় এখানে তৃণমূলেরা গত কয়েকদিন আগে চল্লিশটা বাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। আমরা খবর পেয়ে এই সমস্ত অসহায় পরিবারগুলি পাশে দাঁড়াতে আজ আমরা শুভেন্দুদার নেতৃত্বে এ সমস্ত পরিবারগুলি হাতে সামগ্রী তুলে দিলাম।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.