নয়াদিল্লি: চিনের তৈরি পণ্যের উপর অত্যাধিক নির্ভরতা কাম্য নয়। সেটা বোঝাতেই কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন জনগণের কাছে আর্জি জানিয়েছেন, অন্তত চিনের তৈরি‌ গণেশ মূর্তি কিনবেন না। তার বক্তব্য, দেশের ভিতরে উৎপাদনকে উজ্জীবিত করতে ও‌ কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য পণ্য আমদানিতে কোন দোষ নেই। অর্থাৎ দেশের মধ্যে পাওয়া যায় না এমন অত্যাবশ্যকীয় কাঁচামাল আমদানি করতেই পারেন।

কিন্তু তাই বলে কেন এদেশ গণেশ মূর্তির জন্য ভিনদেশের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে, সেটাতো নিজেদেরই তৈরি করা উচিত। এদিন সরকারের আত্মনির্ভর ভারত অভিযান বিষয় বিজেপির তামিলনাড়ু ইউনিটের‌ কর্মীদের সামনে সীতারামন বক্তব্য রাখছিলেন।

তখন তিনি জানিয়েছেন, এমন কিছু আমদানি করা যাবে না যা কর্মসংস্থান, অর্থনৈতিক বৃদ্ধিতে এবং দেশের অর্থনীতিকে আত্মনির্ভর হতে সহায়তা করবে না। অর্থমন্ত্রী এদিন উল্লেখ করেন, সাংসারিক টুকিটাকি জিনিস যেমন সাবান কৌটো, প্লাস্টিক পণ্য, ধুপ ইত্যাদিতে আত্মনির্ভর ‌ হওয়া দরকার।

সেগুলি ভারতে স্থানীয়ভাবে উৎপাদন করা দরকার। তিনি জানান, বহুদিন ধরেই ভারত আত্মনির্ভর হওয়ার চেষ্টা করছে কিন্তু মাঝে এই প্রবণতা থেকে সরে গিয়ে বিদেশ থেকে পণ্য আমদানির উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে।

এই করোনা ভাইরাস সংকটের সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আমদানি কমিয়ে নিজস্ব পণ্য উৎপাদন করতে মেক ইন ইন্ডিয়া প্রচারে উজ্জীবিত করতে থাকেন। একইসঙ্গে এই সময় আত্মনির্ভর ভারত অভিযান প্যাকেজের কথা বলেন।

তাছাড়া ভারত-চিন সীমান্তে উত্তেজনা বাড়ায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আওয়াজ উঠেছে চিনা পণ্য বয়কট করার। ব্যবসায়ীদের সংগঠন সিএআইটি-র অভিযোগ , ই-কমার্স সংস্থাগুলি প্রচুর পরিমাণে চিনা পণ্য বিক্রি করছে।

ওইসব প্লাটফর্ম গুলি থেকে বিক্রি হওয়া পণ্যের উৎপাদনকারী দেশের নাম উল্লেখ করার দাবি তোলা‌ হয়েছে। অন্যদিকে আবার আরএসএস অনুমোদিত স্বদেশী জাগরণ মঞ্চের পক্ষ থেকে একইরকম দাবি তোলা হয়েছে ই-কমার্স প্লাটফর্মে বিক্রি হওয়া বিভিন্ন পণ্যের বিষয়।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।