বাগদাদ: ফের ইরাকে টার্গেট করা করা হল মার্কিন সেনাকে। ইরাকের তরফে জানানো হয়েছে, সোমবার মার্কিন সেনাদের লক্ষ্য করে বাগদাদ বিমানবন্দরে রকেট হামলা চালানো হয়েছে। এই হামলায় একই পরিবারের তিন শিশু ও দুই মহিলা নিহত হয়েছেন।

ওয়াশিংটনের তরফে দূতাবাস বন্ধ করে দেওয়ার এবং সেন আসরানোর হুমকি দেওয়ার পরেই এই হামলা চালানো হয়। স্পষ্টতই ইরাকের অভ্যন্তরীণ প্রশ্নে যুক্তরাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ বন্ধ ও ইরাক থেকে তাদের সেনা প্রত্যাহারে বাধ্য করতে এসব হামলা চালানো হচ্ছে।

সোমবারের হামলায় তিন শিশু ও দুই মহিলা নিহত হওয়ার পাশাপাশি আরও দুই শিশু আহত হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। চলতি মাসে এমন বেশ কয়েকটি হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করা হয়েছে। গত শনিবার ইরানের বিদেশমন্ত্রী জাভেদ জারিফ, এই ধরনের হামলার নিন্দা করেন। তিনি বলেন, ইরাকে এ ধরনের হামলা অবশ্যই বন্ধ হতে হবে।

তবে ইরাক থেকে ধীরে ধীরে সেনা সরাচ্ছে আমেরিকা। ইরাকের অভ্যন্তরেও কিছু মানুষ দাবি জানাচ্ছেন, মার্কিন সেনারা ফেরত যাক। এজন্য সেদেশে বেশ কিছু জনসভাও অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশেষত ইরানপন্থী সমর্থকরা মার্কিন সেনাদের উপর ক্ষুব্ধ। একসময় ইরাকে মার্কিন সেনার ৬টি ঘাঁটি ছিল, এখন সেখানে ঘাঁটি রয়েছে মাত্র ৩টি।

অন্যদিকে বেশ কয়েকটি সমীক্ষা দেখাচ্ছে, ট্রাম্প এখন বিডেনের চেয়ে পিছিয়ে রয়েছেন। সুতরাং ট্রাম্প চাইছেন বিডেনকে মাত দিতে। ইরাকে আইএসআইএসের পতনের পরে পুনর্নির্মাণের কাজ চলছে। আমেরিকান সেনারা পুনর্নির্মাণের পাশাপাশি সুরক্ষা ক্ষেত্রেও সহায়তা করছে। ইরাকে প্রায় ৫২০০ মার্কিন সেনা রয়েছে। বেশ কয়েকজন সমস্ত সেনা প্রত্যাহারের দাবিও জানিয়েছে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।