স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: গণধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় এবার বিজেপির সুরে সুর মেলাল বাম ও কংগ্রেস। পুলিশের বিরুদ্ধে একই দাবিতে সরব হল এই দুই রাজনৈতিক শিবির। মঙ্গলবার দুপুরে প্রায় একই সময়ে বালুরঘাটে আলাদাভাবে কংগ্রেস ও বাম ছাত্র-যুব সংগঠনের তরফে বিক্ষোভ প্রদর্শন করল তারা।

এদিন প্রদেশ সভাপতি সৌরভ প্রসাদের নেতৃত্বে, যুব কংগ্রেস সমর্থকরা মিছিল করে জেলা পুলিশ কার্যালয়ের সামনে গিয়ে ধর্নায় বসে পড়েন। দ্রুত চার্জশিট পেশে ব্যর্থতার অভিযোগ তুলে তাঁরা বিক্ষোভও দেখান। যুব কংগ্রেসের প্রদেশ সভাপতি সৌরভ প্রসাদ এদিন, কুমারগঞ্জের নৃশংস ঘটনার তদন্ত সিবিআইকে দিয়ে করানোর দাবিও তুলেছেন।

অন্যদিকে সিপিআইএম’এর দুই সংগঠন এসএফএই ও ডিওয়াইএফআই সমর্থকরাও, জেলা প্রশাসনিক ভবনের সামনে বিক্ষোভ দেখান। এসএফআই এর জেলা সম্পাদক সুরজিৎ সরকার কুমারগঞ্জের ছাত্রীকে গণধর্ষণ ও নৃশংসভাবে খুনের ঘটনার নিন্দা করেছেন। এদিন তিনিও দ্রুত চার্জশিট পেশ ও জড়িতদের বিরুদ্ধে ফাঁসির দাবি জানিয়েছেন।

 গত ৬ জানুয়ারি বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে কুমারগঞ্জের বেলখোর এলাকায় কিশোরীকে গণধর্ষণ ও নৃশংসভাবে খুনের ঘটনায় কয়েকদিন ধরেই বিভিন্ন প্রান্তে চলছে প্রতিবাদ। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। রাজ্য সরকারের তরফে মৃতার পরিবারের হাতে আর্থিক ক্ষতিপূরণের চেকও তুলে দেওয়া হয়েছে।

গত ১১ জানুয়ারি বালুরঘাটে মৃতার মা-বাবার হাতে চার লক্ষ বারো হাজার পাঁচশো টাকার চেক তুলে দেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান অর্পিতা ঘোষ। দ্রুত চার্জশিট প্রদান ও ঘটনার তদন্তভার সিবিআইকে দেওয়ার দাবিতে রাস্তায় নামে বিজেপি। দলের মহিলা মোর্চার রাজ্য সভানেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় গঙ্গারামপুরের পঞ্চগ্রামে মৃতার বাড়িতে গিয়ে দেখাও করে এসেছেন।

এদিকে কুমারগঞ্জের এই ঘটনার খবর দিল্লি পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই জাতীয় সিডিউল কাস্টস কমিশনের সদস্য ডঃ যোগেন্দ্র পাসোয়ানের নেতৃত্ব একটি দল দিল্লি থেকে এসে পঞ্চগ্রাম ঘুরে গিয়েছেন। কমিশনের তরফে, সাতদিনের মধ্যে চার্জশিট পেশের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এমনকি কমিশনের সদস্য এই হুমকিও দিয়েছেন যে, নির্দেশ না মানা হলে রাজ্যের ডিজি হোম সেক্রেটারি ও ডিএম এসপি কে দিল্লিতে তলব করা হবে। পরদিনই তদন্তকারী অফিসারকে সরিয়ে সে জায়গায় সিএই পদাধিকারী একজনকে দায়িত্ব দিয়েছে জেলা পুলিশ।