প্রতীতি ঘোষ, খড়দহ: স্বামী বিবেকানন্দ বলেছিলেন,”জীবে প্রেম করে যেই জন, সেই জন সেবিছে ঈশ্বর।” অর্থাৎ মানুষের সেবা করলে ঈশ্বরের প্রাপ্তি। স্বামীজির সেই আদর্শ মেনেই উত্তর ২৪ পরগনার খড়দহের এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘জীবজ্ঞানে শিব পুজো’ করল। ধর্মীয় সংস্কার মেনে শিবলিঙ্গের মাথায় ঢেলে অপচয় না করে দুঃস্থ শিশুদের দুধ বিতরণ তাঁরা৷

সাধারন মানুষের মধ্যে জনসচেতনতা গড়ে তুলতে, শুক্রবার মহা শিবরাত্রির দিন অন্তত ৫০০ জন দরিদ্র দুঃস্থ শিশুদের হাতে দুধের প্যাকেট তুলে দেওয়া হল। এমনই অভিনব কর্মসূচি পালন করল খড়দহের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা।তাদের বক্তব্য, দেশের বহু ক্ষুধার্ত শিশু সামান্য দুধের অভাবে কষ্ট পায়। পুষ্টির অভাবে ভোগে৷ তাই লিটার লিটার দুধ পাথরের শিব মূর্তির মাথায় ঢালা না ঢেলে, সেখান থেকে কিছুটা দুঃস্থ শিশুদের খাওয়ানো হলে, তাদের কিছুটা পুষ্টির অভাব মিটবে। সেই সচেতনতা গড়ে তুলতেই এই উদ্যোগ৷

 

 

শিবরাত্রির দিন খড়দহের ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার উদ্যোগে পথ শিশুদের হাতে দুধের প্যাকেট তুলে দেওয়া হল। এদিন সকাল সকাল দুধের প্যাকেট হাতে পেয়ে ভীষন খুশী ওইসব পথ শিশুরা। ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, “স্বামী বিবেকানন্দের আদর্শ মেনে “জীব জ্ঞানে শিব সেবার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। গ্যালন গ্যালন দুধ নষ্ট না করে দুঃস্থ শিশুদের খাওয়ালে তা কাজে লাগবে। সেই কারনে, মহা শিবরাত্রির দিন দুঃস্থদের মধ্যে দুধের প্যাকেট বিতরণ কর্মসূচি পালন করা হল।” গত বছরও শিবরাত্রির দিনে দুস্থ শিশুদের দুধ খাইয়েছিল এই সংস্থা৷

এদিন সারা দেশে মহাসমারোহে শিবরাত্রি উত্‍সব পালন করছেন হিন্দুরা। সারাদিন উপবাসের পরে সন্ধ্যায় পাথরের শিবলিঙ্গের মাথায় দুধ ও জল ঢালা পুজোর রীতি। এভাবে এদিন প্রচুর দুধ অপচয় হয় বলে মনে করেন মানবাধিকার কর্মীরা। বহু সিনেমাতেও এই বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে৷