স্টাফ রিপোর্টার, দিঘা: সৈকত শহরে সি বিচ বা রাস্তাঘাটে এবার থেকে পসরা সাজিয়ে আর ব্যবসা করা যাবে না। সৈকত শহর দিঘার সৌন্দ্যর্য বাড়াতে এবং পর্যটকদের কাছে সৈকতকে আরও সুন্দর করে সাজিয়ে তুলতে উদ্যোগ নিয়েছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন। আর জেলা প্রশাসনের এই নির্দেশ পাওয়ার পরই বুধবার থেকে হকার উচ্ছেদ অভিযানে নেমেছে প্রশাসনের আধিকারিকরা।

স্থানীয় ও প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, পূর্ব মেদিনীপুর জেলা প্রশাসনের নির্দেশ শেষ হওয়ার পরই, বুধবার দিঘায় হকার উচ্ছেদ শুরু হয়েছে। এদিন দিঘায় জোরকদমে হকার উচ্ছেদ অভিযান চলে। অশান্তি এড়াতে দিঘায় বিশাল সংখ্যক পুলিশ বাহিনী- সহ কমব্যাট ফোর্স মোতায়েন রয়েছে।

জেলা প্রশাসনের দাবি, পর্যটকদের সুবিধার্থে দিঘাকে অবরোধ মুক্ত করতে কিংবা রাস্তার উপরে যত্রতত্র বসা হকারদের সরে যেতে হবে।অভিযোগ, এখনও বহু হকার পুনর্বাসন পাননি। হকারদের অভিযোগ, আগে পুনর্বাসন স্টল বিলির ক্ষেত্রে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। তা ছাড়া শীতে পর্যটনের মরসুম শুরু হওয়ার মুখে উচ্ছেদ অভিযানে তাঁদের জীবিকা ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

 

কাঁথি সাংগঠনিক জেলা বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি তপন মাইতিকে এই বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি বলেন, “দিঘায় হকারদের আগে স্টল বিলির ক্ষেত্রে যথেচ্ছ অনিয়ম হয়েছে। তৃণমূল নেতাদের পরিবারকেই বেছে স্টল দেওয়া হয়েছে। তবে হকারদের আগে পুনর্বাসন দিয়েই, তারপর উচ্ছেদ করা হোক।” দিঘা শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের আধিকারিক সুজন দত্ত বলেন। ”২০১২ সালে সমীক্ষার রিপোর্টের ভিত্তিতে হকারদের পুনর্বাসন স্টল দেওয়া হয়েছে। তবে সমস্যা থাকায় এখনও কিছু হকারদের স্টল দেওয়া যায়নি।”