কলকাতা: স্মার্ট, ঝকঝকে বুদ্ধিদীপ্ত। এই শব্দগুলো বললে টালিগঞ্জের যে ক’জন অভিনেত্রীর মুখ ভেসে ওঠে চোখে তার মধ্যে প্রথম সারিতেই রয়েছেন পার্নো মিত্র৷ এবার তিনি বরানগর কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী৷ তাঁর বিপক্ষে রয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী তাপস রায়। বরানগরের বিজেপি প্রার্থী পার্নো মিত্রের কথায়, ”আমি শুধু মানুষকে ভালোবাসা দিতে এসেছি। ভোটের স্ট্র্যাটেজি ঠিক করবে এখানকার দলীয় (বিজেপি) সংগঠন।” তিনি আরও বলেছেন, ”আমি রূপোলি পর্দার মানুষ, সেখানে মানুষ আমায় ভালোবাসা দিয়েছেন, এবার সেই ভালোবাসাই মানুষকে আমি ফিরিয়ে দিতে চাই।”

আরও পড়ুন: জানেন কত সোনা-হিরে রয়েছে সুজিত বসুর, জানলে তাক লেগে যাবে

নির্বাচন কমিশনের কাছে হলফনামায় পার্নো জানিয়েছেন তাঁর উপার্জন ও সম্পত্তির বিবরণ। ২০১৯-’২০ আর্থিক বর্ষে তাঁর উপার্জন ছিল ১৭ লক্ষ ৩২ হাজার ৯৪৮ টাকা। এই মুহূর্তে তাঁর হাতে আছে নগদ ১৪ হাজার ৩৭৫ টাকা। বিভিন্ন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে তাঁর নামে গচ্ছিত আছে যথাক্রমে ৫ হাজার ২৪৩ টাকা ২০ পয়সা, ৪ হাজার ১৪৭ টাকা ২৬ পয়সা এবং ২ লক্ষ ৯১ হাজার ২৬৪ টাকা ২৬ পয়সা।

পাশাপাশি, বিভিন্ন স্থায়ী আমানতে রাখা আছে দেড় লক্ষ টাকা, ১ লক্ষ টাকা, ২৫ হাজার টাকা, ৯৯ হাজার ৭৩৪ টাকা এবং ১ লক্ষ ৮ হাজার ৮৭০ টাকা। সব মিলিয়ে, রাজনীতিক-অভিনেত্রীর নামে ব্যাঙ্কে গচ্ছিত আছে প্রায় ৮ লক্ষ টাকা। জীবনবিমার ক্ষেত্রে তিনি বিনিয়োগ করেছেন ২ লক্ষ ৯ হাজার টাকা। তাঁর কাছে থাকা ২০ গ্রাম সোনার দাম ৭০ হাজার টাকা

আরও পড়ুন: পৌনে ১ কোটির অস্থাবর সম্পত্তি, দুটি দামী গাড়ি, হলফনামায় জানালেন অদিতি

হলফনামায় পার্নো জানিয়েছেন, তাঁর নামে কোনও কৃষিজমি নেই। বাড়িও একটিই। বালিগঞ্জের কর্নফিল্ড রোডের সেই ফ্ল্যাটেই তিনি থাকেন। ২০১৬ সালে ১২০০ বর্গফুটের ওই ফ্ল্যাট তিনি কিনেছিলেন ৫০ লক্ষ টাকায়। ফ্ল্যাটের বর্তমান বাজারদর প্রায় ৫৫ লক্ষ টাকা।

২০১৮ সালে পার্নো একটি সেকেন্ড হ্যান্ড ইকো স্পোর্ট ফোর্ড গাড়ি কিনেছিলেন। দাম পড়েছিল ৩ লক্ষ ৬৫ হাজার ২১০ টাকা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.