গুয়াহাটি: শুরুর দিকে ছবিটা ছিল একদম অন্যরকম। তবে সময়ের সঙ্গে তা দ্রুত বদলে গিয়ছে। শেষ সাতদিনে অসমে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১,১৮৬ জন।

এখনও অবধি করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২,২৪৩ জন। মোট সংক্রমণের ৫২.৮৭ শতাংশ শেষ সাতদিনে হয়েছে বলেই জানা গিয়েছে সরকারি সূত্রে।

অসমের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা জানিয়েছেন, শেষ ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১২৮ জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন। বর্তমানে মোট সংখ্যা ২,২৪৩ জন। চিকিৎসার পরে ৫০৯ জন হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন।

এছাড়াও রাজ্যে করোনা ভাইরাসের সক্রিয় ঘটনার ১,৭২৭টি। অসম সরকারের তরফের তথ্য অনুযায়ী, ১,১৮৬ পজিটিভ ঘটনা শেষ সাতদিনে সামনে এসেছে।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, মে মাসের ৩০ তারিখ নতুন করে করোনা সংক্রমণ হয়েছে ১৫৯ জনের, ৩১ তারিখে তা ১৪৫, জুনের ১ তারিখ ১২৪টি নতুন ঘটনা সামনে আসে, জুনের ২ তারিখ ৭৬টি এবং জুনের ৩ তারিখ ২৬৯টি এবং জুনের ৪ তারিখ ২৮৫টি এবং ৫ তারিখ ১২৮টি ঘটনা সামনে এসেছে।

প্রসঙ্গত, স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য বলছে শেষ কিছু সপ্তাহে দেশে সংক্রমণের হার একধাক্কায় অনেকটা বেড়ে গিয়েছে। করোনা ভাইরাসকে বিশ্ব মহামারি ঘোষণার ৪৮ দিনের মাথায় প্রথম ১০০০ জনের মৃত্যুর খবর এসেছে ভারতে।

সংক্রমণের হার নাটকীয়ভাবে বেড়ে গিয়েছে। ভারতে সংক্রমিতদের সংখ্যা এপ্রিলের ২৬ তারিখ অর্থাৎ ৮৭ দিনের মাথায় ২৫০০০ পার করেছে, তবে সেই সংখ্যা দ্রুত গতিতে বাড়ছে। মাত্র ছয় সপ্তাহে সংখ্যাটি ২,২৬,৭৭০ জন হয়েছে।

ক্রমবর্ধমান এই সংখ্যা চিন্তা বাড়াচ্ছে, এমনিতেই দুমাসের বেশিদিনের এই লকডাউনে ব্যপক আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। লকডাউন ৪ পর্যন্ত যাওয়ার পরে আর লকডাউন বাড়ানোর ক্ষমতা দেখাতে পারেনি কেন্দ্র।

শুরু হয়ে গিয়েছে শিথিলতা। চলছে আনলক ১। এই ধাপে মন্দির সহ অন্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ভক্তদের জন্য খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ব্দেশ আনলক হতেই লাফিয়ে লাফিয়ে দেশে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এমন পরিস্থিতিতে ধর্মীয় স্থানের জন্য নতুন নিয়ম জারি করল কেন্দ্র।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প