নয়াদিল্লি: ক্রমেই আরও উত্তপ্ত হয়ে পড়বে উত্তর-পূর্ব ভারতের পরিস্থিতি। অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছে অসম-সহ একাধিক রাজ্যের আবহ। পরিস্থিতি আঁচ করে ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁদের ভারত সফর বাতিল করেছেন। এবার জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের সফর নিয়েও বড়সড় প্রশ্নচিহ্ন দেখা দিয়েছে। অসমেই আসার কথা রয়েছে জাপানের প্রধানমন্ত্রীর। শিনজো আবেদে ভারতে আসতে আমন্ত্রণ জানায় মোদী সরকারই। তবে অসমের সাম্প্রতিক অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতির জেরে সম্ভবত জাপানের প্রধানমন্ত্রীর অসম সফর বাতিল হতে চলেছে।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে উত্তপ্ত গোটা অসম৷ শুধু অসম নয় ক্ষোভের আগুনে জ্বলছে মেঘালয়, ত্রিপুরা, মণিপুরও৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গেই সেনা নামাতে বাধ্য হয়েছে প্রশাসন৷ শিনজো আবেকে অসমে এনে একগুচ্ছ উন্নয়নমুখী প্রকল্পের ঘোষণা করার পরিকল্পনা ছিল ভারত সরকারের৷ রাজনৈতিক মহলের একাংশএর দাবি, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশের পর বিশেষত উত্তর-পূর্বের রাজ্যে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি সামাল দিতে নয়া প্রকল্প ঘোষণা ‘ক্ষতে’র উপর প্রলেপ হতে পারে৷ জাপানের প্রধানমন্ত্রীর সফর ঘিরে সাজানো হয়েছিল গুয়াহাটি শহরের রাস্তাঘাট৷ উত্তর-পূর্ব ভারতের এই শহরজুড়ে শিনজো আবের কাট-আউটও লাগানো হয়৷

লোকসভা? নাগরিক্তব সংশোধনী বিল পাশের পর থেকেই উত্তপ্ত গোটা অসম৷ কেন্দ্রীয় সরকারের পদক্ষেপের বিরুদ্ধে রাজ্যের সর্বত্র চলছে প্রতিবাদ-আন্দোলন৷ রাস্তায় নেমে টায়ার জ্বালিয়ে চলছে অবরোধ-বিক্ষোভ৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে অসমে সেনা নামানো হয়েছে৷ অসমের একাধিক শহরের রাস্তায় টহল দিচ্ছে সেনা-পুলিশ৷

গুয়াহাটির রাজপথে নেমে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন হাজার-হাজার মানুষ। হাত কেটে রক্ত দিয়ে পোস্টার লিখে স্লোগান তুলছেন ছাত্রছাত্রীরা। অসমের রাজধানী দিসপুরেও চলছে প্রবল বিক্ষোভ৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বঙ্গাইগাঁও, ডিব্রুগড়ে দু’কলাম সেনা মোতায়েন করা হয়। জোড়হাটেও সেনা মোতায়েন করা হয়। ডিব্রুগড়ে জারি হয় ১৪৪ ধারা। যে কোনও ধরনের জমায়েত, মিটিং, মিছিল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কারফিউ-ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দিয়ে অসমে ক্ষোভ দমনের চেষ্টায় প্রশাসন৷ এই পরিস্থিতিতে আদৌ শিনজো আবের গুয়াহাটি সফর হবে কিনা তা নয়ে সন্দিহান নয়াদিল্লি৷