গুয়াহাটি: বিশৃঙ্খল ও রক্তাক্ত পরিস্থিতি একটু কমেছিল। কিন্তু নতুন করে বিক্ষোভ ছড়াচ্ছে। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বাতিলের দাবিতে কর্মবিরতি শুরু করছেন অসম রাজ্য সরকারি কর্মীরা। ফের মন্ত্রীর পিছনে তাড়া বিক্ষোভকারীদের। জানা গিয়েছে, সোমবার অসমের সর্বত্র কর্মবিরতি পালন করা হবে। অবিলম্বে আইনটি বাতিল না করা হলে আরও বৃহত্তর আন্দোলন হবে বলেও জানিয়েছে কর্মচারি পরিষদ। এই আন্দোলনে সমর্থন আসতে শুরু করেছে বিক্ষোভকারীদের বিভিন্ন সংগঠনের তরফে।

অন্যদিকে নাগরিকত্ব আইন প্রয়োগ করতে অনড় অসমের বিজেপি সরকার। আর প্রতিবাদের সামনের সারিতে থাকা অল অসম স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন ( আসু) বিরোধিতায় অটল। তাদের হুঁশিয়ারি, আরও বৃহত্তর আন্দোলনের। এমন অবস্থায় কর্মচারি পরিষদের কর্মবিরতির বার্তায় প্রশাসনিক মহলে ছড়িয়েছে আলোড়ন। এতে সরকারি কাজ প্রবল ব্যহত হবে বলে আশঙ্কা। খবর এসেছে রাজ্যের সেচমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা রণজিৎ দত্তের গাড়ি ঘিরে কালো পতাকা প্রদর্শন করা হয়। তাঁর গাড়ির পিছনে অনেকে তাড়া করেন।

কোনওরকমে মন্ত্রী-কে সরিয়ে নিয়ে যান নিরাপত্তা রক্ষীরা। বিল পাস ও আইনে পরিণত হওয়ার মাঝে টানা ৫০ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে রক্তাক্ত আন্দোলনে অগ্নিগর্ভ অসম। মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোওয়ালকে এবারপোর্টে ও বাড়িতে ঘেরাও করেন বিক্ষোভকারীরা। একাধিক বিজেপি ও সরকারের শরিক অগপ নেতা-বিধায়ক-মন্ত্রী পালিয়ে থানায় আশ্রয় নেন। বিজেপি রাজ্য সভাপতি রণজিৎ দাসের বাড়িও ঘেরাও হয়।

বিক্ষোভকারীদের হামলার মুখে পড়েন গুয়াহাটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশ সহকারি হাই কমিশনার। এর জেরে ঢাকা থেকে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেওয়া হয়। গুয়াহাটিতে প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে সাক্ষাৎ বাতিল করেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির যুক্তি দিয়ে মেঘালয় সফর বাতিল করেছেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ