বর্ধমান (পূর্ব বর্ধমান): নির্মাণকারী সংস্থা কাজ সম্পূর্ণ করে তা রেল দফতরকে হস্তান্তরই করেনি। তা সত্ত্বেও মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে বর্ধমান-কাটোয়া রেলওয়ে উড়ালপুলের উদ্বোধনে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। রেল সূত্রে খবর, ব্রিজের ভার ক্ষমতা পরীক্ষা করা হয়নি। যে কেবল লাগানো হয়েছে তা সঠিকভাবে কাজ করছে কিনা বিশেষজ্ঞ দিয়ে তা পরীক্ষা করা হয়নি। আরও বলা হয়, ৬টি পিলার সম্পর্কেও এখনও পরীক্ষা বাকি রয়েছে।

ট্রাফিক ও গাড়ি নিয়ন্ত্রণের বিষয়টিও এখনও খতিয়ে দেখা হয়নি। সোমবারই চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয় এখনও ব্রিজ চালুর জন্য কয়েকদিন দরকার। মেদিনীপুরের বীরসিংহ থেকে এই উদ্বোধন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রাক্তন রেলমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ‌্যায়। এই উদ্বোধন ঘিরে শহরে আলোড়ন। প্রশ্ন, কী দরকার ছিল এমন প্রক্রিয়ার। মঙ্গলবার সেই অনুষ্ঠানে পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় থাকলেও, ছিলেন না রেলের কোনও প্রতিনিধি।

সুব্রতবাবু ঘোষণাও করেন, তাঁর ক্ষমতায় থাকলে তিনি ব্রিজের নামকরণ মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নামেই করতেন। এতেই বিতর্ক আরও বেড়েছে। কী করে মন্ত্রী এমন মন্তব্য করতে পারেন তা নিয়ে সরগরম বর্ধমানের রাজনৈতিক মহল। দেশের অন্যতম এই রেল ওভার ব্রিজের উদ্বোধন ঘিরে রাজ্য ও কেন্দ্র দ্বন্দ্ব বাড়ছে।

নির্মাণ কাজের জন্য় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার কথা লিখে এ্যাপ্রোচ রোডগুলির মুখে রেল বিকাশ নিগম লিমিটেড ব্যারিকেড ছিল। তারই একটি ব্যারিকেড রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এতে নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। ব্রিজের উদ্বোধনেই উড়ালপুলের কিছু কিছু জায়গায় কর্মীদের কাজ করতে দেখা গেছে।

উল্লেখ্য, কেন্দ্র ও রাজ্যের যৌথ উদ্যোগে তৈরী এই প্রকল্পের মোট খরচ হয়েছে ২৮৭.৮৯ কোটি টাকা। জানা গিয়েছে, ৩০ সেপ্টেম্বর রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল বর্ধমান-কাটোয়া রেলওয়ে ওভারব্রিজের উদ্বোধন করবেন।