আর্কাইভ

স্টাফ রিপোর্টার,কলকাতা: একটি ছিনতাই ও অপহরণের অভিযোগের তদন্তে নেমে চক্ষু চড়কগাছ লালবাজারের৷ কি কান্ড! ঘটনায় জড়িত খোদ পুলিশ অফিসার৷ যদিও গোয়েন্দা বিভাগের ক্রাইম রেকর্ড সেকশনে কর্মরত এক এএসআই-সহ তিনজনকে গ্রেফতার করে কলকাতা পুলিশ৷ ধৃত পুলিশ অফিসারের নাম আশিস চন্দ৷

ঘটনার সূত্রপাত গত ৪ জুলাই৷ নদীয়ার এক স্বর্ণ ব্যবসায়ী বাবলু নাথ বউবাজার সোনাপট্টিতে এসেছিলেন৷ ব্যবসায়ী কাজে মাঝে মাঝেই তিনি বউবাজারে আসতেন৷ সেদিনও দুপুরে সোনাপট্টিতে আসেন৷ তখন তার সঙ্গে ছিল নগদ ১ লক্ষ টাকা ও ৫০ গ্রাম সোনা৷

আরও পড়ুন: দলিতকে বিয়ে করায় অত্যাচার করছে বাবা, অভিযোগ বিজেপি বিধায়ক কন্যার

হঠাৎ একজন নিজেকে পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাকে জোর করে একটি টাটা সুমোতে তুলে নিয়ে যায়৷ কিছুদূর যাওয়ার গাড়ির ভিতরে তাকে ভয় দেখিয়ে তার সঙ্গে থাকা নগদ টাকা ও সোনা নিয়ে নেয় ওই পুলিশ অফিসার৷ এবং তাকে এয়ারপোর্টের কাছে নামিয়ে গাড়ি নিয়ে পালিয়ে যায়৷ ওই ব্যবসায়ী পরে মুচিপাড়া থানায় এমনই অভিযোগ করেন৷

আরও পড়ুন: পল্লবীর জোশীর ক্রেডিট কার্ডের তথ্য হাতিয়ে অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও টাকা

ঘটনার বিবরন শোনে প্রথমে মুaচিপাড়া থানার পুলিশ ভেবেছিল এটা ভুয়ো পুলিশের কান্ড৷ কিন্তু তদন্তে নেমে চক্ষু চড়কগাছ পুলিশের৷ ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে একটি টাটা সুমোর নম্বর উদ্ধার করে। পরে সেই গাড়ির মালিক ও তার চালককে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে ওই পুলিশ অফিসারের
নাম জানতে পারে৷

এরপর গোয়েন্দা বিভাগের ক্রাইম রেকর্ড সেকশনে কর্মরত এএসআইসহ আশিস চন্দ কে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ ধৃত তিনজনকে আদালতে তোলা হলে, আদালত ১৬ জুলাই পর্যন্ত তাদের পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে।