দিল্লি জয়ে বাংলার দুই নায়ক অভিমন্যু ঈশ্বরণ ও অশোক দিন্দা৷

পানজি: অশোক দিন্দা বঙ্গক্রিকেটের সঙ্গে এই নামের যোগ ছিল গত দেড় দশক৷ কিন্তু এখন তিনি বাংলার ক্রিকেটে ব্রাত্য৷ আসন্ন ঘরোয়া মরশুমে গোয়ার হয়ে খেলতকে দেখা যাবে অশোক দিন্দাকে৷ ভারতীয় দলের জার্সিতে ১৩টি ওয়ান ডে এবং ৯টি টি-২০ ম্যাচ খেলা বাংলার এই ডানহাতি পেসার গত মরশুমেই শেষবার বাংলার হয়ে খেলেছেন৷

চলতি মরশুমে দিন্দার ভিন রাজ্যের হয়ে খেলার সম্ভাবনা ছিলই৷ এবার তা সত্যি হল৷ আসন্ন মরশুমে গোয়ার হয়ে রঞ্জি ট্রফি খেলতে দেখা যাবে ৩৬ বছরের এই ডানহাতি পেসারকে৷ গোয়া ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের তরফে সোমবার এমনটাই জানানো হয়েছে৷ গোয়া ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সচিব বিপুল ফাদকে এদিন পিটিআই-কে জানান, ‘যদি এবার ঘরোয়া ক্রিকেট মরশুম শুরু হয় তাহলে অশোক দিন্দাকে গোয়ার হয়ে রঞ্জি ট্রফি খেলতে দেখা যাবে৷’

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে চলতি বছর মার্চ থেকে দেশের মাটিতে সবধরনের খেলাধূলো বন্ধ৷ ব্যতিক্রম নয়, ক্রিকেটও৷ ঘরোয়া ক্রিকেটে গত মরশুমে কোভিড ১৯-এর কারণে শেষ দিকে কয়েকটি ম্যাচ খেলা না-হলেও প্রথম দিকে ম্যাচ খেলা হয়েছিল৷ দিন্দাকে রঞ্জি ট্রফির কয়েকটি ম্যাচে খেলতে দেখা গেলেও ঘরের মাঠে বাংলার প্রথম ম্যাচ থেকেই তাঁর মাঠে নামা হয়নি৷

বাংলার এক নম্বর পেসারের মাঠে না-নামার কারণ ছিল শৃঙ্খলাভঙ্গ৷ ইডেনে অন্ধপ্রদেশের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে বাংলার প্রথম ম্যাচের আগের দিন দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল দিন্দাকে৷ বোলিং কোচ রণদেব বসুর সঙ্গে দিন্দা ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েছিলেন৷ নতুন নয়৷ অতীতেও বাংলার হয়ে খেলার সময়ও দিন্দা ও রণদেবের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়েছিল৷ কিন্তু তখন দু’জনেই ছিলেন খেলোয়াড়৷ ১১৬টি প্রথমশ্রেণির ম্যাচে ৪২০টি উইকেট নেওয়া বাংলার অভিজ্ঞ পেসার দিন্দা এবার দলের বোলিং কোচ রণদেবের সঙ্গে সংযত ব্যবহার না-করায় বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি সিএবি-র শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি৷

দিন্দাকে ক্ষমা চাইতে বলেছিলেন সিএবি সচিব অভিষেক ডালমিয়া৷ কিন্তু বাংলার অভিজ্ঞ পেসার তাতে রাজি হয়নি৷ এরপরই দিন্দাকে দল থেকে ছেঁটে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷ তবে দিন্দা এতে বিন্দুমাত্র বিচলিত না-হলে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছিলেন, তিনি আর বাংলার হয়ে কোনও দিন খেলবেন না৷ শুধু তাই নয়, পরের মরশুমে তিনি অন্য রাজ্যের হয়ে খেলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বাংলার এই অভিজ্ঞ পেসার৷

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।