কাবুল: তিন ভিন্ন ফর্ম্যাটে তিনজন ভিন্ন অধিনায়ক। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই শুক্রবার তিন ফর্ম্যাটের জন্য তিনজন আলাদা-আলাদা অধিনায়কের নাম ঘোষণা করল আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। ঘোষণা অনুযায়ী নতুন অধিনায়কের অধিনায়কত্বে আগামী মাস থেকে শুরু হতে চলা ক্রিকেট বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে চলেছে আগগানিস্তান।

বিশ্বকাপ শুরুর একমাস আগে আসঘার আফগানকে সরিয়ে ওয়ান ডে ফর্ম্যাটে আফগানিস্তানের নতুন অধিনায়ক নির্বাচিত হলেন গুলবাদিন নাইব। পাঁচদিনের ক্রিকেটে এশিয়ার দেশটিকে নেতৃত্ব দেবেন রহমত আলি এবং ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে আফগানিস্তানের অধিনায়কত্বের ব্যাটন থাকবে লেগ-স্পিনার রশিদ খানের হাতে।

আরও পড়ুন: কলকাতার নজর জয়ে ফেরায়, কোহলিদের লক্ষ্য প্রথম জয়

নবনিযুক্ত অধিনায়কদের মধ্যে একমাত্র রশিদ খান ছাড়া জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার অভিজ্ঞতা নেই গুলবাইন কিংবা রহমতের। তাই বলা যেতে পারে আনকোরা অধিনায়কের অধিনায়কত্বেই বিশ্বকাপে অভিযান শুরু করবে আফগানরা। ওয়ান-ডে, টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টিতে সহ-অধিনায়ক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন যথাক্রমে রশিদ খান, শফিকুল্লাহ শফিক ও হাসমাতুল্লাহ শাহিদি।

আরও পড়ুন: ধারাভাষ্যকারকে খুনের হুমকি আরসিবি ফ্যানের

২০১৫ মহম্মদ নবির পরিবর্তে অধিনায়ক হিসেবে স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন আসঘার আফগান। তাঁর অধিনায়কত্বেই আফগানিস্তান ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার পূর্ণাঙ্গ  সদস্যপদ লাভ করে। শুধু তাই নয়, সম্প্রতি দেরাদুনে আইরিশদের হারিয়ে প্রথম ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ের স্বাদ পেয়েছে আফগানরা।

আরও পড়ুন: রাতে মুম্বইকে জিতিয়ে সকালে শ্রীলঙ্কায় আগুন ঝরালেন মালিঙ্গা

বছর একত্রিশের আসঘারের অধিনায়কত্বে ৩৩টি ওয়ান-ডে জয়ের স্বাদ পেয়েছে আফগানিস্তান। তার মধ্যে ২০১৮ বিশ্বকাপের যোগ্যতা নির্ণায়ক পর্বের ফাইনালে ক্যারিবিয়ানদের হারিয়ে আফগানদের জয় স্মরণীয় হয়ে থাকবে। টি-টোয়েন্টি ফর্ম্যাটে আসঘারের অধিনায়কত্বে ৪৬টি ম্যাচের মধ্যে ৩৭টিতেই জয় পেয়েছে এশীয় শক্তিটি।

আগামী ১জুন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করার আগে স্কটল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে একটি করে ম্যাচ খেলবে আফগানরা। এরপর বিশ্বকাপ শুরুর আগে পাকিস্তান ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে গা-ঘামাবে গুলবাদিনের দল।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.