নয়াদিল্লি: সরসঙ্ঘচালক মোহন ভগবতকে চ্যালেঞ্জ করলেন এআইএমআইএম সভাপতি আসাউদ্দিন ওয়াইসি। রাষ্ট্রীয স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের বা আরএসএস প্রধান ভগবত মঙ্গলবার বলেছিলেন, গণপিটুনির ঘটনায মৃত্যু ভারতের সংস্কৃতি নয়, এটা পাশ্চত্যের ধারণা। তাই ওই শব্দ দিয়ে দেশকে বদনাম করবেন না। মঙ্গলবার দশেরায় নাগপুরে রেশমিবাগের মাঠে ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি একথা বলেন।

বুধবার সকালে টুইট করে উত্তর দিয়েছেন ওয়াইসি। তিনি বলেছেন, আরএসআস হিন্দু রাষ্ট্রের স্বপ্ন দেখে। হিন্দু রাষ্ট্র হিন্দু আধিপত্যে বিশ্বাসী। অর্থ, অহিন্দুদের দমন-পীড়ণ। হিন্দুদেরই আধিপত্য থাকবে। অহিন্দু সংখ্যালঘুরা শুধু ভারতে থাকার অধিকার পাবে। এরপর নিজের বক্তব্যে ওয়াইসি বলেন, গণপিটুনিতে মৃত্যু ভারতের বিষয়। এটা আমি মিস্টার ভগবতকে বলে দিতে চাই। ভারতে এই ঘটনা ঘটে। নরেন্দ্র মোদীজি যখন মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তথন গুজরাটের গণহত্যা হয়েছে।

আরএসএস প্রধানের বক্তব্য ছিল, কোনও নির্দিষ্ট একটি ধর্মকে টার্গেট করে এই ঘটনা ঘটছে। এদিনের অনুষ্ঠানে তিনি দাবি করেন, গণপ্রহারে মৃত্যু বিষয়টি ভারতের ঐতিহ্যে অনুপস্থিত, এটি অন্য জায়গা থেকে এসেছে এবং অন্য জায়গায় চলে। ভারতের উপর এই শব্দ চাপিয়ে দেওয়া উচিৎ নয়। এটি একটি পাশ্চাত্য ধারণা। এর সঙ্গে ভারতের কোনও যোগ নেই। এই ধরণের শব্দ ব্যবহার করে ভারতকে বদনাম করা থেকে বিরত থাকতে হবে। ভারতীয়রা ভাইয়ে ভাইয়ে সম্প্রীতিতে বিশ্বাস করে। ভারতের সংস্কৃতির সঙ্গে গণপ্রহারে মৃতুর কোনও মিল নেই। ভারতীয় সমাজকে সংবিধানের সীমার মধ্যে থেকে কাজ করতে হবে।

সরসঙ্ঘচালক মোহন ভগবতের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ওয়াইসি ব্যাখ্যা, শুধপ মুসলমানরাই নয়, হিন্দু, দলিতরা গমপ্রহারে মৃত্যুর মুখ দেখেছে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর হ্ত্যার পর দিল্লির রাস্তায় ১৯৮৪ সালে শিখ হত্যার কথা কী ভাবে ভুলে যাবে ভারত।