হায়দরাবাদ: প্রত্যাশা মতোই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাক্ষাতকার নিয়ে কটাক্ষ করলেন এআইএমআইএম প্রধান আসাদুদ্দিন ওয়াইসি। হায়দরাবাদের সাংসদের নিশানা থেকে বাদ যাননি মোদীর প্রশ্নকর্তা অক্ষয় কুমারও।

দিন কয়েক আগে প্রকাশ্যে আসে নরেন্দ্র মোদীর দীর্ঘ সাক্ষাতকার। যা নিয়েছিলেন অভিনেতা অক্ষয় কুমার। দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনেই চলে দীর্ঘ আলাপচারিতা। উঠে আসে নানাবিধ বিষয় এবং তথ্য। যা নিয়ে শোরগোল পরেছে জাতীয় রাজনীতিতে। বঙ্গের রাজনীতিতেও বিশেষ প্রভাব ফেলেছে সেই সাক্ষাতকার।

বিরোধী শিবিরের অভিযোগ ছিল একটি স্ক্রিপ্টেড সাক্ষাতকার দিয়েছেন মোদী। সেই একই সুর শোনা গিয়েছে আসাদুদ্দিনের গলাতেও। শুক্রবার হায়দরাবাদে এক নির্বাচনী জনসভায় দাঁড়িয়ে ওয়াইসি জানান যে টেলিভিশনের সঞ্চালকদের সঙ্গে কথা বলতে ভয় পাচ্ছেন। তাই অভিনেতা ডেকে সাক্ষাতকার দিতে হচ্ছে। তাঁর কথায়, “টেলিভিশ্নের সঞ্চালকেরা অভিনয় জানেন না। সেই কারণেই ভালো অভিনেতা ডেকে সাক্ষাতকার দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।”

এরপরেই অভিনেতা অক্ষয় কুমারকে আক্রমন করা শুরু করেন মোদী। তিনি বলেছেন, “অভিনেতা প্রশ্ন করছেন, আপনি কী আম কেটে খান না চুষে খান? এটা কোনও প্রশ্ন হল? আম খেতেই জানে না সে আবার এত কিছু কী করে বলবে! আম পেলে তো খাবে।”

ওই সভায় দাঁড়িয়ে মোদী প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যর্থ বলে দাবি করেছেন আসাদুদ্দিন ওয়াইসি। নিজের এই বক্তব্যের সপক্ষে বেকারত্ব বৃদ্ধি এবং কৃষক মৃত্যুর ঘটনার উল্লেখ করেছেন হায়দরাবাদের সাংসদ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।