প্রতীকী/ফাইল ছবি

নয়াদিল্লিঃ  প্রায় এক সপ্তাহ দেরিতে অবশেষে বর্ষ ঢুকেছে কেরলে। রবিবার পাকাপাকিভাবে বর্ষা ঢুকেছে সেখানে। ইতিমধ্যে কেরলের বিস্তির্ন এলাকায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে। একদিকে যখন দেরিতে হলেও বর্ষামঙ্গল শুরু হয়েছে অন্যদিকে তখন ফের একবার ঘুর্ণিঝড়ের ভ্রকুটি। ইতিমধ্যে এই বিষয়ে সতর্কতা জারি করেছে মৌসম ভবন। আবহাওয়াবিদদের পূর্বাভাস যেভাবে এটি শক্তি পাকাচ্ছে তাতে আগামী ২৪ ঘন্টা সাইক্লোনের রূপও নিতে পারে এই নিম্নচাপ।

যদিও এই সাইক্লোনের অভিমুখ কোন দিকে হবে তা নিয়ে এখনও নিশ্চিত ভাবে কিছু বলতে পারছেন না জাতীয় আবহাওয়া দফতরের আবহাওয়াবীদরা। যদিও প্রতি মুহূর্তের উপর তাঁরা নজরদারি চালাচ্ছেন বলে জানানো হয়েছে। ইতিমধ্যে মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

দিল্লির আবহাওয়া অফিসের তরফে পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে, দক্ষিণ-পূর্ব আরব সাগর ও তত্‍‌সংলগ্ন লাক্ষাদ্বীপের উপর এই নিম্নচাপটি তৈরি হয়েছে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় আরও গভীর নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। এরপর এটি ধীরে ধীরে উত্তর-উত্তরপশ্চিমে সরে তার পরের ২৪ ঘণ্টায় আরও শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ের আকার নিতে পারে বলে পূর্বাভাস মৌসমভবনের।

একই সঙ্গে পূর্বাভাসে আরও জানাচ্ছে হাওয়া এই গভীর নিম্নচাপের কারনে আগামী ২৪ ঘণ্টায় ৪০-৫০ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়া দক্ষিণ-পূর্ব আরব সাগর ও পাশ্ববর্তী লাক্ষাদ্বীপের উপর বইতে পারে। আর সেই কারণে আগামী কয়েকদিন মত্‍‌স্যজীবীদের গভীর সমুদ্রে যেতে বারণও করা হয়েছে।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ১২ জুন উত্তর মালাপ্পুরম ও কোঝিকোড়েতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

গত কয়েকমাস আগে ভারতের উপর আছড়ে পড়ে সুপার সাইক্লোন ফণী। এই সাইক্লোনের অভিমুখ ওডিশা এবং পশ্চিমবঙ্গের দিকে ছিল। কোনও রকমে পশ্চিমবঙ্গ রক্ষা পেলেও সুপার সাইক্লোনের আঘাতে তছনছ হয়ে যায় গোটা ওডিশা। বিশেষ করে ব্যাপক ক্ষতি হয় পুরীর। সেই রেশ এখনও কাটিয়ে উঠতে পারেনি সেখানকার মানুষ। আর এরই মধ্যে আরও একটি শক্তি পাকাচ্ছে সাইক্লোন। জাতীয় হাওয়া অফিসের তরফে এই সতর্কবার্তা ইতিমধ্যে দেশের সমস্ত হাওয়া অফিসকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। দেশের সমস্ত প্রান্ত থেকে এই গভীর নিম্নচাপটির উপর নজরদারি চালানো হচ্ছে।