নয়াদিল্লিঃ  দিল্লির স্কুলগুলিতে ক্রমাগত বেড়ে চলেছে নানা দুর্ঘটনার খবর। এবার এই দুর্ঘটনা এড়াতে কড়া পদক্ষেপ নিতে উদ্যোগী কেজরিওয়াল সরকার। নভেম্বরের মধ্যে সমস্ত স্কুলে সিসিটিভি বসানোর প্রতিশ্রুতি দিলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। শহরের সমস্ত সরকারি স্কুলগুলিতে সিসিটিভি বসানো হবে বলে জানান তিনি। গতকাল শনিবারই এই প্রকল্পের কথা ঘোষণা করে দিল্লি সরকার।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী এই পদক্ষেপকে ঐতিহাসিক পদক্ষেপ বলেও ঘোষণা করেছেন। তিনি বলেছেন, রাজধানীর শিক্ষা ব্যবস্থায় সংস্কারের দিকে একধাপ এগোল সরকার। আপ আদমি পার্টি পরিচালিত কেন্দ্র শাসিত সরকার এই প্রকল্পের সূচনা করতে চলেছে। লাজপত নগরে শহীদ হিমু কালানি সর্বদয়া বাল বিদ্যালয় দিয়ে প্রথম চালু হতে চলেছে এই প্রকল্প। নভেম্বরের মধ্যে আপাতত দিল্লির হাজারটি স্কুলে বসানো হবে সিসিটিভি।

কেজরি আরও বলেন শহরের বেসরকারি স্কুলগুলি ইতিমধ্যেই সিসিটিভি লাগানোর পরিকল্পনা নিয়েছে। পিটিআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, এই পদক্ষেপ নিঃসন্দেহে ঐতিহাসিক পদক্ষেপ। জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থায় সংস্কারের দিকে নতুন দিশা দেখাবে এই পদক্ষেপ। কারণ ক্যামেরায় ধরে রাখা ক্লাসের ফুটেজ মোবাইলে অ্যাপের মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের কাছে পৌঁছে যাবে। সুতরাং তাদের সন্তান স্কুলে এসে কি করছে তার পুঙ্খানুপুঙ্খ হদিশ থাকবে অভিভাবকদের কাছে। এর ফলে তাদের নিরাপত্তা থেকে সুরক্ষার চাদর আরও লম্বা হবে। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর আরও ধারণা, এই নতুন উদ্যোগটি আগামী বছর দিল্লির সরকারি স্কুলের ফলাফলের উন্নতিতে সহায়তা করবে।

অন্যদিকে, বিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীদের গোপনীয়তার লঙ্ঘনের বিষয়ে প্রশ্ন উঠলে এক সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া বিবৃতিতে কেজরিওয়াল বলেন, “এই ব্যবস্থায় কোনরকম গোপনীয়তা রক্ষার অভাব হবে না। শিক্ষালাভের উদ্দেশ্যে এবং দেশের দায়িত্ব প্রাপ্ত নাগরিক হওয়ার লক্ষ্যে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে আসে। কোন কিছু গোপন করতে তারা বিদ্যালয়ে আসে না।” কেজরিওয়াল অভিভাবকদের নিশ্চিত করে বলেন, DGS অ্যাপের মাধ্যমে তারা স্কুলে সব সময় সন্তানের উপর নজর রাখতে পারবেন।”